বিয়ানীবাজারে চকলেটের লোভ দেখিয়ে শিশু ধর্ষণ

10

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি
সিলেটের বিয়ানীবাজারে ছয় বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। চকলেটের লোভ দেখিয়ে একই এলাকার আব্দুল লতিকে (৬৩) শিশুটিকে ধর্ষণ করে বলে শিশুর পরিবারের অভিযোগ। এ ঘটনায় আব্দুল লতিকে আসামি করে শিশুর পরিবার থানায় মামলা দায়ের করে। অভিযুক্ত আব্দুল লতিকে (৬৩) গ্রেপ্তার করে গত বুধবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।
অভিযুক্ত আব্দুল লতি উপজেলার চারখাইয়ের লাংলাকোনা গ্রামের মৃত মোশাহিদ আলীর ছেলে।
পুলিশ ও শিশুর পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, বিয়ানীবাজার উপজেলার চারখাই ইউনিয়নের লাংলাকোনা গ্রামের একটি প্রাইমারি স্কুলের ২য় শ্রেণীর শিক্ষার্থী। গত রোববার বিকাল ৪টার দিকে বাড়ির পাশে একটি পুকুরে গোসল করতে গেলে পথে চকলেট দেয়ার কথা বলে আব্দুল লতি নিজের মুদির দোকানে নিয়ে যায়। পরে তাকে ভয় দেখিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণ করে। রক্তাক্ত অবস্থায় ওই শিশুটি বাড়িতে এসে ঘটনাটি তার মাকে বলে। পরে বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করা হয়। তবে মীমাংসা না হওয়ায় ভিকটিমের পরিবার ঘটনাটি পুলিশকে জানায় এবং ওই দিন রাতেই শিশুটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।
শিশুটির মা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমার মেয়েকে চকলেটের লোভ দেখাইয়া নির্যাতন করে লতি। আমার নিষ্পাপ মেয়ের সাথে তার কিসে হিংসে আমি জানি না। এলাকায় লতি প্রভাব আছে পরিবার নিয়ে ভয়ে আছি আমরা। ঘটনার পর বাড়িতে পুলিশ আসছে।’
বিয়ানীবাজার থানার ওসি (তদন্ত) জাহিদুল হক বলেন, গ্রেপ্তার আব্দুল লতি পেশায় মুদির দোকানী। চকলেট খাওয়ানোর লোভ দেখিয়ে লতি শিশুকে ধর্ষণ করে। পরে ওই শিশুর মা বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।