গোলাপগঞ্জে ছেলের কুপে বাবার পর মায়ের মৃত্যু

12

 

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি

সিলেটের গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের সুনামপুরে পাষণ্ড ছেলের দা ও কোদালের কুপে পিতার মৃত্যুর পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মায়েরও মৃত্যু হয়েছে। রোববার (৫ এপ্রিল) সকালে গোলাপগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান। তিনি জানান, বর্তমানে লাশ ময়না তদন্তের জন্য সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

নিহত নারী ঢাকাদক্ষিণ ইউপির সুনামপুর গ্রামের আবদুল করিম খান ওরফে ঠাকুর মনাই এর স্ত্রী মিনারা বেগম (৫৫)। এর আগে ঘটনার দিন পাষণ্ড ছেলের দা ও কোদালের কুপে মায়ের অবস্থা আশংকাজনক হলে তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে গত (১এপ্রিল) তাকে বাড়িতে আনা হয়।

পরে বাড়িতে থাকা অবস্থায় তার অবস্থার অবনতি হওয়ায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে রোববার (৫ এপ্রিল) সকালে তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (২৭ মার্চ) সকালে গোলাপগঞ্জের ঢাকাদক্ষিণ ইউপির সুনামপুর গ্রামে গাছ কাটা নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে ঘাতক ছেলে রাহেল (৩৬) তার বাবা আবদুল করিম খান ওরফে ঠাকুর মনাই (৭০) কুপিয়ে হত্যা করে এবং মা মিনারা বেগম (৫৫) এগিয়ে আসলে তাকেও কুপিয়ে জখম করে।

পরে শনিবার (২৮মার্চ) ভোর ৪ টায় কুশিয়ারা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ পরিদর্শক মুরাদ উল্ল্যাহ বাহার, এস আই কামরুল ইসলাম ও পিন্টু সরকারের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলার সৎপুরে তার ভায়রা আব্দুল আহাদ (৩৫) এর বাড়ি থেকে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করেন। ঐদিন পরিবারের পক্ষ থেকে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। বর্তমানে সে কারাগারে রয়েছে।