সাহেদকে নিয়ে উত্তরায় ‘গোপন অফিসে’ র‌্যাব

35

রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান সাহেদ করিমকে নিয়ে রাজধানীর উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ২০ নম্বর সড়কের ৬২ নম্বর বাসায় অভিযান চালাচ্ছে র‍্যাব।

বুধবার সকাল ৯টায় সাতক্ষীরা থেকে ঢাকায় আনার পর সাহেদকে প্রথমে র‍্যাব সদর দপ্তরে নেওয়া হয়। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে নিয়ে র‍্যাব উত্তরার ওই বাসায় যায়।

সিএইচএল বায়তুল এহসান নামের একটি বহুতল ভবনে র‍্যাব অভিযান চালাচ্ছে। ভবনটির পঞ্চম তলায় সাহেদ করিমের একটি গোপন অফিস আছে বলে জানিয়েছেন র‍্যাবের কর্মকর্তারা।

র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিল্লাহ উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, সাহেদ করিমের এই অফিস সম্পর্কে তাঁদের আগে জানা ছিল না। ভবনটির ভেতরে ও বাইরে র‍্যাবের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক সদস্য উপস্থিত আছেন।

সাহেদকে বহনকারী হেলিকপ্টার বুধবার সকাল ৯টায় তেজগাঁওয়ের পুরোনো বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ছবি: সাজিদ হোসেনসাহেদকে বহনকারী হেলিকপ্টার বুধবার সকাল ৯টায় তেজগাঁওয়ের পুরোনো বিমানবন্দরে অবতরণ করে। ছবি: সাজিদ হোসেন

র‍্যাব জানায়, বুধবার ভোর ৫টার দিকে সাহেদ করিমকে সাতক্ষীরায় গ্রেপ্তার করা হয়। নৌপথে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন সাহেদ।

সরকারের সঙ্গে চুক্তি ভঙ্গ করে রিজেন্ট হাসপাতাল টাকার বিনিময়ে করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ ও চিকিৎসা এবং ভুয়া প্রতিবেদন দিয়ে আসছিল। ৬ জুলাই এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাব প্রথমে রিজেন্টের উত্তরা শাখা ও পরে মিরপুর শাখা এবং রিজেন্টের প্রধান কার্যালয় সিলগালা করে দেয়। বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় র‍্যাব ১৭ জনকে আসামি করে মামলা করে। সাহেদসহ এই মামলায় ১১ জন গ্রেপ্তার আছেন।

আশিক বিল্লাহ সাংবাদিকদের বলেন, মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব র‍্যাবের হাতে দেওয়ার জন্য তাঁরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন জানিয়েছেন।