সিলেটে রেলমন্ত্রী আখাউড়া-সিলেট রুটে রেলের কাজ দ্রুত শুরু হবে

16

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জে রেলওয়ের ১৮ একর ভ‚মি, স্থাপনা ও রোপওয়ে রক্ষা এবং আখাউড়া থেকে সিলেট রুটে রেলের কাজ দ্রæত শুরু হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. নুরুল ইসলাম সুজন।
গতকাল রোববার সকালে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারিতে অবস্থিত রেল স্থাপনা পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন রেলমন্ত্রী।
মন্ত্রী বলেন, বিলীন হওয়ার হাত থেকে ভোলাগঞ্জে রেলওয়ের ভ‚মি কীভাবে রক্ষা করা যায়, এ বিষয়েও পদক্ষেপ নেওয়া হবে। আপাতত ভোলাগঞ্জে রেলওয়ের ভূমি ও স্থাপনা দেখা হচ্ছে। এছাড়া রোপওয়ে আবার করা যাবে কিনা এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ের সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানান রেলমন্ত্রী।
এর আগে তিনি বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. শামছুজ্জামানকে সঙ্গে নিয়ে রেলওয়ের ভূমি, স্থাপনা, রোপওয়ে, বাঙ্কার পরিদর্শন করেন। পরে তিনি ভোলাগঞ্জ পাথর কোয়ারি এলাকার ধলাই নদীও ভ্রমণ করেন
জানা গেছে, কোম্পানীগঞ্জের ভোলাগঞ্জে বাংলাদেশ রেলওয়ের রোপওয়ে বাঙ্কার দিয়ে ছাতকে পাথর পরিবহন করা হতো। তবে ক্ষমতাসীনদের আগ্রাসনে বিলিন হওয়ার পথে রেলওয়ের স্থাপনাটি।
২০১০ সালে রেলওয়ে ওই স্থান রক্ষায় নিজস্ব নিরাপত্তারক্ষী দিলেও রাতের আঁধারে ‘পাথরখেকোরা’ বাঙ্কার এলাকা থেকে পাথর উত্তোলন অব্যাহত রাখে। ফলে রোপওয়ে লাইনের খুঁটিগুলোও পড়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। কয়েক যুগ পর এবার মন্ত্রীর সুনজর পড়েছে ওই এলাকায়।
পরে মন্ত্রী রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নিয়ে সড়ক পথে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলা সদরে অবস্থিত বাংলাদেশ রেলওয়ের একমাত্র ¯িøপার কারখানা পরিদর্শনের যান।
ছাতক প্রতিনিধি জানান, রেলপথ মন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, দেশের রেলপথ ব্যবস্থাকে আধুনিকায়ন, যুগপোযুগী নিরাপদ ও জনকল্যানকর যাতায়াত মাধ্যম হিসেবে গড়ে তুলা হবে। গতকাল রোববার বন্ধ থাকা রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান ছাতক কংক্রিট ¯øীপার কারখানা পরিদর্শনকালে মন্ত্রী এ কথা বলেন। এসময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সিলেট-ছাতক রেলপথকে সুনামগঞ্জ পর্যন্ত বর্ধিত করার কাজ দ্রæতই শুরু করা হবে। পরবর্তিতে এ লাইন মোহনগঞ্জ-নেত্রকোনা হয়ে ঢাকার সাথে সংযোগ করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। শীঘ্রই ছাতক কংক্রিট ¯øীপার কারখানা ব্রডগেজ ¯øীপার উৎপাদন উপযোগী করে চালু করা হবে। সিলেট-ছাতক রেলে তিনগুন বগীবৃদ্ধি করার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী আরো বলেন, ছাতকসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দখলকৃত রেলওয়ের ভুমি উদ্ধারে দ্রæত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এর আগে তিনি রেলওয়ের ভোলাগঞ্জ বাংকার ও পাথর খনি এলাকা পরিদর্শন করেন। ¯øীপার কারখানা পরিদর্শনকাল রেলওয়ে বিভাগের মহা পরিচালক মোহাম্মদ সামছুজ্জামান, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহা-ব্যবস্থাপক.নাসির উদ্দিন, এডিজি (আই) ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার, চিফ ইঞ্জিনিয়ার (পূর্ব) মোহাম্মদ সুবক্তগীন, ঢাকার ডিভিশন্যাল জেনারেল ম্যানাজার এএম সালাহ উদ্দিন, সুনামগঞ্জের সহকারী জেলা প্রশাসক রাশেদ ইকবাল, ছাতক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম কবির, সহকারী কমিশনার(ভুমি) তাপস শীল, রেলওয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান আহমদ, এএসপি বিল্লাল হোসেন, ওসি মোস্তফা কামালসহ রেলওয়ে বিভাগের বিভিন্ন কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

  •