ছাতকের পীরপুর ভুমি অফিসের সহকারীর বিরুদ্ধে আবেদন নথি গায়েবের অভিযোগ

3

ছাতক প্রতিনিধি
ছাতকের পীরপুর ভুমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা আব্বাস উদ্দেনের বিরুদ্ধে উৎকোচের বিনিময়ে আবেদন নথি গায়েব ও নস্যাৎ করার অভিযোগ এনে জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত দেয়া হয়েছে। রোববার উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ-সৈদেরগাঁও ইউনিয়নের গোবিন্দনগর গ্রামের আনসার আলীর স্ত্রী সিপা বেগম এ অভিযোগ দেন। অভিযোগ থেকে জানা যায়, আনসার আলী ও তার স্ত্রী সিপা বেগমের নামে ২০১৮ সালের ৪ নভেম্বর ভুমি লিজের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে দুটি পৃথক আবেদন দেন তারা। আবেদনের ধারাবাহিকতায় তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) সোনিয়া সুলতানা তদন্তের জন্য পীরপুর ভুমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা আব্বাস উদ্দেনকে দায়িত্ব প্রদান করেন। বিষয়টি সরজমিনে তদন্ত করেন সার্ভেয়ার মুজিবুর রহমান মোল্লা ও শাহীন আলম। পরবর্তীতে তদন্ত প্রতিবেদন প্রাপ্তির জন্য দিনের পর দিন সার্ভেয়ারদের সাথে যোগাযোগ ও কাকুতি-মিনতী করেছেন। কিন্তু কোনভাবেই বাদীনিকে তদন্ত প্রতিবেন কপি দেয়া হয়নি। অপর দিকে ভুমি লিজ প্রাপ্তিে বাধা প্রদানকারী এ প্রভাবশালী ব্যক্তির কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহন করে বে-আইনীভাবে ভুমি বন্দোবস্ত প্রদানে অসহযোগিতা করেছেন ওই কর্মকর্তা। যার ফলশ্রæতিতে আবেদনের মুল নথি গায়েব ও নস্যাৎ করে দেয়া হয়। এ নিয়ে প্রতিপক্ষ লোকজন দখলকৃত ভুমি জোরপূর্বক দলখ নিতে মরিয়া উঠে এবয় এতে ভুমি অফিসের পক্ষ থেকে আভ্যন্তরিন সহযোগিতা করা হচ্ছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। এ নিয়ে উত্তপ্ত পরিবেশ বিরাজ করলে সিপা বেগম ২০১৯ সালের ৩ নভেম্বর ছাতক থানায় একটি জিডি(নং-১০৯) এন্ট্রি করেন। এ বিষয়ে এক আত্মীয়র মাধ্যমে পরিকল্পনা মন্ত্রী বরাবরে একটি আবেদন দেয়া হলে মন্ত্রী এতে একটি সুপারিশ লিখে দেন। নথি গায়েবের মূল রহস্য উৎঘাটন করে ন্যায় বিচার প্রাপ্তির প্রত্যাশায় তিনি এ অভিযোগ দায়ের করেন।

  •