পুরনো স্ত্রীকে ডিভোর্স গোলাপগঞ্জে বিয়ের রাতে বর গ্রেপ্তার

9

স্টাফ রিপোর্টার
যুক্তরাষ্ট্র নাগরিক সাইদুর রহমান (৩৫)। বাড়ি সিলেটর জালালাবাদ থানার মঙ্গলগাঁও ইউপির আউশা গ্রামে। তিনি ফয়জুল হকের ছেলে।
বিয়ে করার জন্য আমেরিকা থেকে ৪দিন আগে দেশে আসেন। দেশে আশার পর নিজের বাড়িতে না উঠে গোলাপগঞ্জ পৌরসভার ডাকবাংলা রোর্ডের একটি বাসার ৪র্থ তলায় ভাড়ায় উঠেন। দেশে আসার আগেই বর পক্ষের লোকজন সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার ভাদেশ্বর ইউপির খাউয়াটিকি ছিলিমপুর গ্রামের মাওলানা মোবারক হোসেনের মেয়ে জাকেরা বেগম (২২) এর সাথে বিয়ে ঠিক করেন। ওই বর আমেরিকায় থাকাঅবস্থায় তার স্বজনরা তিন মাস আগে ৭লক্ষ টাকা দেন মোহর ধার্য করে বিয়ে ঠিক করেছিলেন।
সকল আনুষ্ঠানিকতাও শেষ হওয়ার পর গত রোববার রাতে গোলাপগঞ্জ পৌরসভাস্থ সানরাইজ পার্টি সেন্টারে বিয়ের অনুষ্ঠান হওয়ারও কথা ছিল। আর ওনদিন সন্ধ্যা রাতেই গোলাপগঞ্জ থানাপুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের পর জানা গেলো ওই বর ওয়ারেন্টভ‚ আসামি। এর আগে বিয়েও করেছেন। অন্য স্ত্রী ঘরে রেখে বিয়ে করছেন। পুরনো স্ত্রী শাহিনা আক্তার ‘রুমি’র বাবা সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার লাউতলা গ্রামের কাছা মিয়ার দায়ের করা মামলার ওয়ারেন্টভ‚ আসামি ছিলেন তিনি। আর এ কারণেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলা সিআর ৫৪/২০।
ওই বরের পুরনো স্ত্রী আছে এমন খবর শুনে নতুন কনের পিতা মাওলানা মোবারক হোসেনও গোলাপগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
এদিকে ওই বরের বোন ফারজানা আক্তার তাহমিনা বলেন, ২০১৮ সালে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থানার লাউতলা গ্রামের কাছা মিয়ার মেয়ে শাহিনা আক্তার ‘রুমি’ (২৫) এর সাথে আমার ভাইয়ের বিয়ে হয়। বিয়ের রাতে তিনি বুজতে পারেন অন্য কোনো ছেলের সাথে তার সম্পর্ক রয়েছে। তাই রুমিকে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেওয়ার পর ডিভোর্স দেওয়া হয়। বিয়ের ২-৩ মাস পর আমার ভাই সাইদুর আমেরিকায় চলে যায়। আর আমার ভাইয়ের নতুন বিয়ে ঠিক হওয়ার খবর শুনে পুরনো স্ত্রীর পিতা মামলা দেন।
এ বিষয়ে গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন মাওলানা মোবারক হোসেনের অভিযোগটি তদন্তাধিন রয়েছে। একটি ওয়ারেন্টে আমেরিকা প্রবাসি সাইদুর রহমানকে বিয়ের রাতে গ্রেপ্তার করা হয়। তার পুরনো স্ত্রী রয়েছে।

  •