নবীগঞ্জে অটোরিকশা ভাড়াকে কেন্দ্র করে শ্রমিক ও গ্রামবাসীর সংঘর্ষ | ৩০ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ | আহত অর্ধশত

5

এম.এ আহমদ আজাদ, নবীগঞ্জ
নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম সড়কে সিএনজি অটোরিকশার ভাড়াকে কেন্দ্র করে সিএনজি শ্রমিক ও এলাকাবাসীর মধ্যে দফায় দফায় ভয়াবহ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এক পর্যায়ে পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত অর্ধশতাধিক লোকজন আহত হয়েছে। সংঘর্ষ চলাকালে প্রায় ৭০টি সিএনজি অটোরিক্সার গøাস ভাংচুর করা হয়। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম সড়কের বাউসা পয়েন্টে রক্তক্ষয়ী এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহতদের হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। একজনকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসামানী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে প্রেরণ করা হয়। ঘটনার খবর পেয়ে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৩০ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে বলে জানা গেছে।
সূত্রে জানা যায়, নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম সড়কে নবীগঞ্জ সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে বাউসা বাজার পয়েন্ট পর্যন্ত পূর্বে ভাড়া ছিল ১০ টাকা। কয়েকমাস ধরে সিএনজি শ্রমিকরা রাস্তা ভাঙাসহ বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে ভাড়া ৫ টাকা বাড়িয়ে ১৫ টাকা আদায় করে। ভাড়া বৃদ্ধির ঘটনায় বাউসা গ্রামবাসী ও সিএনজি শ্রমিকদের মধ্যে প্রায়ই ভাড়া নিয়ে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়।
এ ঘটনার জের ধরে বেশ কিছুদিন ধরে এলাকাবাসী ও সিএনজি শ্রমিকদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। গত ৩-৪ দিন পূর্বে নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম সড়কের ভাড়া নিয়ে যাত্রী ও সিএনজিচালিত অটোরিকশা শ্রমিকদের চলমান সমস্যা সমাধানে বাউসা ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আবু সিদ্দিকসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও কয়েক গ্রামের বিশিষ্ট মুরুব্বিদের সমন্বয়ে জণসাধারণ এবং সিএনজি শ্রমিকদের নিয়ে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম সড়কে নবীগঞ্জ থেকে রুদ্রগ্রাম পর্যন্ত ৩০ টাকা, নবীগঞ্জ থেকে বাউসা মাদ্রাসা পয়েন্ট পর্যন্ত ১০ টাকা, নবীগঞ্জ থেকে বাউসা বাজার পয়েন্ট পর্যন্ত ১৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়। কিন্তু এ সিদ্ধান্ত মেনে নেয়নি বাউসা গ্রামবাসী। তাদের দাবী নবীগঞ্জ থেকে বাউসা বাজার পয়েন্ট পর্যন্ত ভাড়া ১০ টাকাই যতেষ্ট। এদিকে গত মঙ্গলবার দুপুরে নবীগঞ্জ-রুদ্রগ্রাম নবীগঞ্জ সিএনজি স্ট্যান্ড থেকে এক সিএনজি চালক যাত্রী নিয়ে রুদ্রগ্রাম যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে একজন যাত্রী বাউসা বাজার পয়েন্টে নেমে পড়েন। এ সময় সিএনজি চালক ওই যাত্রীর কাছে ১৫ টাকা ভাড়া দাবী করলে বাউসা গ্রামের যাত্রী ভাড়া ১৫ টাকা দিতে অপারগতা প্রকাশ করে ১০ টাকা দেয়। এ নিয়ে সিএনজি চালক ও যাত্রীর মধ্যে বাক-বিতন্ডা হয়। বাক-বিতন্ডার এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে বাউসা গ্রামবাসী ও সিএনজি শ্রমিকদের মধ্যে শুরু হয় তুমুল সংঘর্ষ। সংঘর্ষ চলাকালে উভয় পক্ষের লোকজন ইট-পাটকেল ও দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিক্ষেপ করে। এক পর্যায়ে সংঘর্ষটি রূপ নেয় রণক্ষেত্রে। ২ ঘন্টা ব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের প্রায় অর্ধশতাধিক লোকজন আহত হয়। ইটপাটকেল নিক্ষেপে অন্তত ৭০টি সিএনজি অটোরিক্সার গ্লাস ভাংচুর হয়।
খবর পেয়ে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ৩০ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
আহতদের মাঝে ফয়জুর রহমান (৬০) নামের একজনকে আশংকাজনক অবস্থায় সিলেট এমএজি ওসামানী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। বাকি আহত সালাম চৌধুরী (৫৫), মতিউর রহমান (৪০), মিন্টু (২২), রমজান (৩০), আব্দুল­া (২৬), রফি মিয়া (২৫), ফজল মিয়া (৩৫), আব্দুল আলী (৩২), আব্দুল ওয়াহিদ (২৬), সুমন (২২), ওয়াহিদ (৫০), চদ্দর মিয়া (৪০), শাকিল (১৮), সুলেমান (৩২), সাইদুল (৩০), আব্দুল মন্নান (৪৫), সোহাগ আহমেদ (২৫), হুমায়ুন (২২), আরজু (৬৯), ওয়াসকুরুনী (৪০), আব্দুল হক (২১), সুহেল মিয়া (৩৭), স্বপন (২৩), আব্দুল কাইয়ুম (৩০), সুরেন্ড সুত্রধর (৩৫), সানুর আলী (৩২), সাহিদুল (৩০), সেজু (১৭), বদর মিয়া (৫০), কালাই মিয়া (৩০)। কে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। অন্যান্য আহতদের চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।
এ ঘটনার খবর পেয়ে নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী, নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমাইয়া মমিনসহ বিভিন্ন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আজিজুর রহমান বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ৩০ রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়।
এ ঘটনায় নবীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুমাইয়া মমিন বলেন, ভাড়া নিয়ে সিএনজি শ্রমিক ও গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। পরবর্তীতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

  •