মাশরাফিকে সংবাদ সম্মেলনে বেশি কষ্ট দেওয়া হয়েছে : পাপন

8

সবুজ সিলেট ডেস্ক
মাশরাফিকে সংবাদ সম্মেলনে একটু বেশিই কষ্ট দেওয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। গতকাল রোববার সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ ও জিম্বাবুয়ের মধ্যকার ওয়ানডে সিরিজের প্রথম খেলার ফাঁকে সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে এমন কথা বলে এ বোর্ড সভাপতি।
এর আগে ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগের দিন মাশরাফি বিন মর্তুজার সংবাদ সম্মেলন হয়ে উঠেছিল উত্তপ্ত। ‘আত্মসম্মান’ শব্দ ব্যবহৃত এক প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। তুমুল আলোচিত সেই সংবাদ সম্মেলন নিয়ে প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে এমন মন্তব্য করেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান।
জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চলমান ওয়ানডে সিরিজ দিয়েই মাশরাফির অধিনায়কত্বের শেষ কিনা, তা নিয়ে সংশয়ের দোলাচল অবশ্য তৈরি করেন বোর্ড প্রধানই। মাসখানেকের মধ্যে ওয়ানডেতে একজন অধিনায়ক ঘোষণার কথা বলেন তিনি।
ম্যাচের আগের দিনের সংবাদ সম্মেলনে তাই সিরিজের আলাপ সরে যায় দূরে। মাশরাফির অবসর বিতর্ক, ভবিষ্যৎ নিয়েই হয় বেশিরভাগ প্রশ্ন। তার উত্তরে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখানো মাশরাফির পাশে দাঁড়িয়েছেন বোর্ডের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা। রোববার ওয়ানডে ম্যাচ দেখা ও সিলেট ক্রিকেট স্টেডিয়ামের অবকাঠামো ঘুরে দেখার পর আগের দিনের ঘটনা সংবাদ মাধ্যমকেও কিছুটা দায় দেন তিনি, ‘ওর প্রেস কনফারেন্স দেখে মনে হয়েছে আপনারা একটু ওকে বেশি খোঁচাচ্ছিলেন। এরকম একটা সময় যখন আপনাদের ওর পাশে থাকা উচিত, সেই জায়গায় মনে হচ্ছে আপনারা ওকে কষ্ট বেশি দিয়ে দিচ্ছেন। এসব নিয়ে আমাদের আলাপ করা উচিতই না আমাদের। ও বলে দিয়েছে ও কি চায়।’
বোর্ড প্রধান পরিষ্কার করে দেন নিজের অবসর নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন মাশরাফি নিজে, আর অধিনায়কত্বের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড, ‘অধিনায়ক কে হবে বোর্ড চূড়ান্ত করবে। যখন যাকে মনে হয় তাকে নির্বাচন করবে। ও কখন অবসর নিবে সেটা ও ঠিক করবে। তাকে সিদ্ধান্ত নিতে দিন। আমার মনে হয় এখানেই শেষ করা উচিত।’
বাংলাদেশের ক্রিকেটে মাশরাফির অবদান ও অধিনায়কত্ব নিয়ে বিসিবি সভাপতি অনেকবার বলা কথায় আবার মনে করিয়ে দেন, ‘খেলোয়াড় হিসেবে সাকিবের কোনো বিকল্প নেই। অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফির কোনো বিকল্প নেই । মাশরাফির অবদান কোনোভাবেই খাটো করার কোনো সুযোগ নেই। আপনারা খেয়াল করেছেন মাশরাফিকে যে পরিমাণে আমরা চেষ্টা করছি সুযোগ দেওয়ার জন্য সেটা কিন্তু অনেকের বেলায় করিনি। মুশফিককে বাদ দিয়ে যখন মাশরাফিকে অধিনায়ক করি তখন কিন্তু কাউকে জিজ্ঞেস করিনি। মাশরাফির ব্যাপারটা ভিন্ন।’

  •