ভারতের সহিংসতার ঘটনায় সিলেটের মানবাধিকারকর্মীদের নিন্দা

6

ভারতের দিল্লীতে সাম্প্রতিক সংঘাত-সহিংসতার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন সিলেটের মানবাধিকারকর্মী ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।
গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে তারা বলেন, ভারতের নয়াদিল্লীতে সস্প্রতি বিতর্কিত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) বাতিলের দাবিতে আন্দলনরত জনগণের উপর রাষ্ট্রীয় পুলিশ বাহিনীর বর্বরোচিত হামলা ও নির্যাতনের একটি ভয়াবহ চিত্র বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের মাধ্যমে আমরা প্রত্যক্ষ করেছি। আমরা এও লক্ষ্য করেছি, এসব হামলা থেকে নারী, শিশু ও বয়োবৃদ্ধরাও রক্ষা পায়নি। আমরা আরো গভীর উদ্বেগের সাথে লক্ষ্য করেছি যে, পুলিশী এ হামলার মূল লক্ষ্য ছিল সেখানকার মুসলিম সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী। ভারতের মতো একটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক দেশে আমরা কখনো রাষ্ট্রীয় বাহিনীর এধরনের নিষ্ঠুর আচরণ প্রত্যাশা করিনা। সাম্প্রতিক এ ঘটনা সারাবিশ্বে অসাম্প্রদায়িক চেতনার ঐতিহ্যবাহী ভারতকে নিঃসন্দেহে প্রশ্নবিদ্ধ করবে।
বিবৃতিতে সাক্ষর করেন হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম, সিলেটের আহ্বায়ক ফারুক মাহমুদ চৌধুরী, সদস্য সচিব লক্ষ্মীকান্ত সিংহ, সনাক সিলেটের সভাপতি আজিজ আহমেদ সেলিম, রাজনীতিবিদ অ্যাডভোকেট বেদানন্দ ভট্টাচার্য, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এমাদ উল্লাহ শহিদুল ইসলাম, ব্লাস সিলেটের সমন্বয়ক অ্যাডভোকেট ইরফানুজ্জামান চৌধুরী, বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবী সমিতি, সিলেটের সমন্বয়কারী অ্যাডভোকেট সৈয়দা শিরীন আক্তার, সাংবাদিক ফয়সল আহমেদ বাবলু, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা), সিলেটের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সাংবাদিক মো.. মুহিবুর রহমান, সাংবাদিক, আইনজীবী মো. রেজাউল করিম খান, হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডার্স ফোরাম, সিলেটের সদস্য নৃপেন্দ্র সিংহ, সামেন্দ্র সিংহ, শিপা ওঁরাও, সারতি ওঁরাও, নীতি বসাক, দিপ্ত নায়েক, বিষ্ণু পাত্র, বিপ্লব পাত্র, সুশীল সিংহ, মিলন ওঁরাও, খাসি স্টুডেন্ট ইউনিয়নের সভাপতি লাভিংসন পসনাম, সহ-সভাপতি আলিজ্যাক তংসং ও সদস্য সোনিয়া তংপের।

  •