সিলেটে বিভিন্ন কর্মসূচিতে ৭ মার্চ পালিত বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বাঙালিকে মুক্তিযুদ্ধে অনুপ্রাণিত করে | নগরীতে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উন্মোচন করলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

7

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটে বিভিন্ন কর্মসূচিতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া বিভিন্ন উপজেলায় যথাযথ মর্যাদায় পালিত হয়েছে ৭ মার্চ। জাতির পিতার ভাষণের উপর আলোচনা করা হয়েছে। এতে বক্তরা বলেন, বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণে মুক্তিযুদ্ধের দিঙ্নির্দেশনা প্রদান করেন। ৭ মার্চের ভাষণেই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। তাঁর ভাষণ বাঙালিকে মুক্তিযুদ্ধে অনুপ্রাণিত করে।
এদিকে, করোনা ভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত বিদেশি অতিথিদের কারও সফরসূচি এখন পর্যন্ত বাতিল হয়নি বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন।
গতকাল শনিবার দুপুরে সিলেটে এম এ জি ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে এ কথা জানান তিনি।
ড. মোমেন বলেন, ‘করোনা ভাইরাসের কারণে মুজিববর্ষ উদযাপনে বিদেশি অতিথিদের আগমনে প্রভাব পড়বে। তবে এখন পর্যন্ত কেউই সফরসূচি বাতিল করেননি। শুধু একজন অতিথি অন্য কারণে আসতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন। এ ব্যাপারে আমরা অত্যন্ত সজাগ। আমরা অত্যন্ত সতর্কতা মেনে চলছি। আমন্ত্রিত অতিথিরা সবাই আসবেন বলে আমার ধারণা।’
বেলা আড়াইটায় নগরের রিকাবীবাজারে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামের বহিরাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উন্মোচন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তখন তিনি বড় ভাই সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলির সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপিসহ কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপন উপলক্ষ্যে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে নির্মিত এ বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল উন্মোচন করা হয়।
বিকেল ৩টায় ‘নব প্রজন্মের নব চেতনায় বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক প্রতিপাদ্যে মুজিব জন্মশতবর্ষের টানা ২০ দিনের অনুষ্ঠানমালারও উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী । এতে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, মহানগর সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শাফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট রনজিত সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
গতকাল ৭ মার্চ থেকে ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস পর্যন্ত টানা ২০ দিন বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ। এ ছাড়া মুজিববর্ষে বছরব্যাপী বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিবসে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ নানা কর্মসূচি পালন করবে।
জেলা প্রশাসন : জেলা প্রশাসন সিলেট-এর উদ্যোগে ‘ঐতিহাসিক ৭ মার্চের গুরুত্ব ও তাৎপর্য’ শীর্ষক এক আলোচনাসভা গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মো. মশিউর রহমান, এনডিসি। জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে আরও উপস্থিত ছিলেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা, সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা, বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ, বিভিন্ন স্কুল-কলেজ থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রী এবং সিলেট কালেক্টরেটের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা।
সিকৃবি : যথাযোগ্য মর্যাদা ও নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিকৃবি) ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উদযাপিত হয়েছে।
দিবস উপলক্ষ্যে শনিবার সকাল ৮টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে শুরু হয় আনন্দ শোভাযাত্রা। মুজিব জন্মশতবর্ষ উদযাপন কমিটির উদ্যোগে এই শোভাযাত্রাটি অনুষ্ঠিত হয় বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা দপ্তর।
শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. মতিয়ার রহমান হাওলাদার। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. বদরুল ইসলাম শোয়েব, পরিচালক (ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা) প্রফেসর ড. মিটু চৌধুরীসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বতস্ফূর্তভাবে শোভাযাত্রায় অংশ নেন। শোভাযাত্রাটি সমগ্র ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করে।
এরপর প্রশাসন ভবনের সামনে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ভাইস-চ্যান্সেলর, জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটি, ডিন কাউন্সিল, শিক্ষক সমিতি, অফিসার পরিষদ, হল প্রভোস্টবৃন্দ, প্রক্টরিয়াল বডি, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, কর্মচারী পরিষদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।
এরপর সিকৃবি’র কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে আওয়ামীপন্থী শিক্ষক সংগঠন গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের উদ্যোগে একটি আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। মুজিব জন্মশতবর্ষ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব প্রফেসর ড. মো. আবদুল বাসেতের সভাপতিত্বে ও গণতান্ত্রিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মো. আতিকুজ্জামানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. মতিয়ার রহমান হাওলাদার।
এ সময় আরো বক্তব্য দেন, শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মৃত্যুঞ্জয় কুন্ড, ফার্মাকোলজি ও টক্সিকোলজি বিভাগের প্রফেসর ড. মো. আনোয়ার হোসেন, অফিসার পরিষদের সভাপতি মো. আনিছুর রহমান, ফিজিওলোজি বিভাগের সহকারী প্রফেসর ডা. সাইফল ইসলাম, কর্মচারী পরিষদের প্রতিনিধি মো. শামসুল ইসলাম প্রমুখ।
বক্তারা ৭ মার্চের ভাষণকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রাথমিক ডাক হিসেবে উল্লেখ করেন। জাতির পিতার এই বক্তব্যকে অন্ধকারাচ্ছন্ন বাঙালির আলোকবর্তিকা হিসেবে উল্লেখ করা হয়। আলোচনাসভার মাঝখানে ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে ৩টি ডকুমেন্টারি প্রদর্শিত হয়।
লিডিং ইউনিভার্সিটি : ৭ মার্চ বাঙালি জাতির স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে এক অনন্য দিন। ১৯৭১ সালের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দেন। দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন উপলক্ষ্যে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন লিডিং ইউনিভার্সিটি পরিবার।
পরবর্তীতে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষ্যে লিডিং ইউনিভার্সিটির উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) বনমালী ভৌমিকের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘দানবীর রাগীব আলী ভবন’ মিলনায়তে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের উদ্দীপ্ত ঘোষণায় আসে স্বাধীনতার দিঙ্নির্দেশনা উল্লেখ করে শিল্পপতি রাগীব আলী বলেন, এই ঐতিহাসিক ভাষণটি ওই সময়ে সমগ্র বাঙালি জাতিকে স্বাধীনতা সংগ্রামে উজ্জীবিত করেছিল, শক্তি যুগিয়েছিল পাক হানাদারদের কবল থেকে দেশকে মুক্ত করার। বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণই প্রেরণা যুগিয়েছে বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে পরিচিত করার এবং উন্নতির পথে এগিয়ে নেয়ার। হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন শান্তির পক্ষে সোচ্চার একজন ব্যক্তিত্ব। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আত্মার শান্তির জন্য আজ আমাদেরকে একসাথে কাজে করে দেশকে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে কাজ করতে হবে। গড়ে তুলতে হবে সঠিক নেতৃত্ব।
লিডিং ইউনিভার্সিটি উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) বনমালী ভৌমিক বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালি জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যায় মুক্তির লক্ষ্যে। ঐতিহাসিক এ ভাষণটি ইউনেস্কোর “ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড রেজিস্টার”-এ অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে “বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যের” স্বীকৃতি লাভ করেছে, এটা আমাদের গর্বের বিষয়। তিনি উল্লেখ করেন, ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ আগামী নেতৃত্ব ও বর্তমান তরুন প্রজন্মকে সঠিকভাবে দেশ ও জাতির উন্নয়নে কাজ করার অনুপ্রেরণা দিবে।
লিডিং ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার মো. কাওসার হাওলাদেরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলা ও আধুনিক ভাষা অনুষদের ডীন প্রফেসর নাসির উদ্দিন আহমেদ। এতে আরও বক্তব্য রাখেন আধুনিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. এম. রকিব উদ্দিন, বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সচিব মেজর (অব.) শায়েখুল হক চৌধুরী, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মোস্তাক আহমেদ দীন, রেজিস্ট্রার মেজর (অব) মো. শাহ আলম পিএসসি এবং প্রক্টর মো. রাশেদুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে নির্মাণ প্রতিষ্ঠান হোমল্যান্ড এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী মো. আক্তারুজ্জামান, রাজনগর চা বাগানের ম্যানেজার তোফায়েল আহমেদসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মাধবপুর : প্রতিনিধি জানান, হবিগঞ্জের মাধবপুরে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষ্যে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণের তাৎপর্য এবং উন্নয়ন অগ্রগতি শীর্ষক এ আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়েশা আক্তার।
উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা জান্নাত সুলতানার সঞ্চালনায় উক্ত আলোচনাসভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা এইচ এম ইশতিয়াক মামুন, মাধবপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাব্বির হাসান, বি আর ডিবি সমন্বয়ক পারভীন সুলতানা, একাডেমিক সুপারভাইজার রোখসানা পারভীন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি চেয়ারম্যান ফারুখ পাঠান, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বেনু মাধব রায়, উপজেলা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহ মো. সেলিম, সাধারণ সম্পাদক শ্রীধাম দাশ প্রমুখ।
বিশ্বনাথ : ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ উপলক্ষ্যে সিলেটের বিশ্বনাথে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করা হয়েছে। গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব পংকি খান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমদের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সাবেক সদস্য এস এম নুনু মিয়াকে সাথে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন নেতৃবৃন্দ। শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের পর থেকে বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ সম্প্রচার করা শুরু হয়।
এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক আবদুল মতিন, প্রচার সম্পাদক নিখিল পাল, বন ও পরিবেশ সম্পাদক রুনু কান্ত দে, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মাহবুব রহমান লিলু, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সিরাজ, সহ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য নিজাম উদ্দিন, বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহব্বত আলী জাহান, উপজেলা শ্রমিক লীগের নির্বাহী সম্পাদক আজাদ আহমদ, সাবেক কার্যকরী সভাপতি শংকর দাশ শংকু, শ্রমিক লীগ নেতা কবির মিয়া, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক আলতাব হোসেন, যুবলীগ নেতা মনোহর হোসেন মুন্না, সায়েদ আহমদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রচার সম্পাদক সিজিল মিয়া, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা নিজাম উদ্দিন প্রমুখসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
ওসমানীনগর : ওসমানীনগরে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ‘ঐতিহাসিক ৭ মার্চের গুরুত্ব তাৎপর্য’ শীর্ষক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার উপজেলা প্রসাশনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছা. তাহমিনা আক্তার। সভায় অংশ গ্রহন করেন ,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আতাউর রহমান, সিনিয়র সহসভাপতি আব্দাল মিয়া, সহসভাপতি উমরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম কিবরিয়া,সাধারণ সম্পাদক, আফজালুর রহমান চৌধুরী নাজলু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অনোরদয় পাল ঝলক, সাংগঠনিক সম্পাদক আনা মিয়া, তাজপুর ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক সুশান্ত দেব নাথ শান্ত, প্রধান শিক্ষক সামছুল হক, প্রধান শিক্ষিকা হেলেনা বেগম চৌধুরী। সভায় বক্তারা বলেন,১৯৭১ সালের ঐতিহাসিক ৭ মার্চে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর দেয়া ভাষণটি ছিলো অন্যায়-অত্যাচারের বিরুদ্ধে একটি অগ্নিস্ফুলিঙ্গ। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবই স্বাধীনতার ঘোষক ও স্থপতি। বর্তমান প্রজন্মকে স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস জানতে এবং চর্চা করতে হবে। আলোচনাসভায় উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন শাখার কর্মকর্তা, রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যক্তিবর্গসহ সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
বিয়ানীবাজার : সিলেটের বিয়ানীবাজারে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষ্যে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গতকাল শনিবার সকালে পৌরশহরের মুক্তিযোদ্ধা কমপে¬ক্স প্রাঙ্গনে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিব্দন করেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি। এরপর বঙ্গবন্ধুর স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
পরে সকাল ১১টায় মুক্তিযোদ্ধা কমপে¬ক্সে মিলনায়তনে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে এক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়ালের সঞ্চালনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আতাউর রহমান খান।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিয়ানীবাজার পৌরসভার মেয়র মো. আব্দুস শুকুর, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক হারুনুর রশীদ দিপু, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ছালেহ আহমদ বাবুল ও জাকির হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য এমাদ উদ্দিন, মুক্তিযোদ্ধা রফিক উদ্দিন।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ সভাপতি হারুন হেলাল, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবাদ আহমদ, আওয়ামী লীগ নেতা জালাল উদ্দিন, উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রুমা চক্রবর্তী, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকশানা বেগম লিমা, পৌরসভার প্যানেল মেয়র নাজিম উদ্দিন, যুবলীগ নেতা সুহেল আহমদ রাশেদ, সাবেক ছাত্রনেতা আমান উদ্দিন ও কাওছার আহমদ, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ড পৌর শাখার সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেনসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।
গোলাপগঞ্জ : প্রতিনিধি জানান, গোলাপগঞ্জে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তাৎপর্য এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি বিষয়ক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুনুর রহমানের সভাপতিত্বে ও উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) শবনম শারমিনের পরিচালনায় আলোচনাসভায় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষি অফিসার খায়রুল আমিন, উপজেলা মুক্তিযুদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার শফিকুর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার অভিজিৎ কুমার পাল, পরিসংখ্যান অফিসার আজিজুল ইসলাম, উপজেলা মুক্তিযুদ্ধ সংসদের সদস্য মুহিব খান, মুক্তিযোদ্ধা চন্দন শুকলো, গোলাপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহসাধারণ সম্পাদক জাহেদুর রহমান জাহেদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, সদস্য ফজলুর রহমান, সাংবাদিক হারিছ আলী, জাহিদ উদ্দিন, ফারহান মাসউদ, গোলাপগঞ্জ কোয়ালিটি স্কুলের ছাত্র-শিক্ষকসহসূধীজন উপস্থিত ছিলেন।
গোয়াইনঘাট : প্রতিনিধি জানান, গোয়াইনঘাটে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণের তাৎপর্য এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গতকাল শনিবার দুপুর ১২টায় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও উপজেলা পরিষদ মিলনায়তে এ আলোচনাসভা অনুষ্ঠি হয়।
গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুস সাকিবের সভাপতিত্বে ও উপজেলা প্রজীপ কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার দাসের পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, গোয়াইনঘাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ফারুক আহমদ, গোয়াইনঘাট সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মো. ফজলুল হক, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এ কে এম নুর হোসেন নির্ঝর, গোয়াইনঘাট থানার ওসি মো. আব্দুল আহাদ, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুলতান আলী, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. আব্দুল হক, গোয়াইনঘাট সরকারি মডেল উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সেলিম উল্লাহ, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন মাষ্টার, গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাব সভাপতি এম এ মতিন, সাবেক চেয়ারম্যান ও বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হামিদ, গোয়াইনঘাট প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক কামরুল হাসান, নিয়াগুল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালিকুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মুজিবুর রহমান, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও সাংবাদিক সুবাস দাস, মুজিবুর রহমান লাইব্রেরি প্রমুখ।
জৈন্তাপুর : প্রতিনিধি জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চ এর ভাষণ উপলক্ষ্যে জৈন্তাপুর উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, আলোচনাসভা ও ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। গতকাল শনিবার সকাল ১১ টায় উপজেলা প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষঅণের তাৎপর্য এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি’ বিষয়ে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা পারভীন। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সুব্রত দেবনাথ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল আহমদ। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার ভুমি ফারুক আহমদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আমিনুল হক, উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল জলিল তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহেদ আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক হানিফ মোহাম্মদ, সদস্য মো. ইয়াহিয়া, নিজপাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান বাবুল, মুক্তি যোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আনোয়ার হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা খলিলুর রহমান জীবন, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি ফারুক আহমদ, যুবলীগের আহবায়ক আনোয়ার হোসেন, যুবলীগের সদস্য সাইফুল ইসলামকে বাবু, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ইমাম উদ্দিন।সভা শেষে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পাঠ ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
জগন্নাথপুর : প্রতিনিধি জানান, জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ অঙ্গঁ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে ৭ই মার্চ উপলক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে । জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পন শেষে আলোচনাসভায় বক্তারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন স্বাধীন বাংলাদেশে স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের ধোকাবাজি আর চলবেনা। ১৯৭১সালের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরে বক্তারা আরো বলেন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বেই ৩০ লক্ষ শহিদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে। গতকাল শনিবার দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজুর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাইয়ুম মশাহিদ, যুগ্ম সম্পাদক লুৎফুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক জয়দ্বীপ সূত্রধর বীরেন্দ্র, প্রচার সম্পাদক আব্দুল জব্বার, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান,সাবেক সহসভাপতি চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান হারুন রশীদ, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আসম আবু তাহিদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক মুজিবুর রহমান মুজিব, পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র শফিকুল হক শফিক, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন ভুইয়া, পাইলগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আপ্তাব উদ্দিন, আশারকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আইয়ুব খান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল কয়েছ ইসরাইল , সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবের কামালী, মীরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়া, পাটলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনু মো. মতছির আলী, রানীগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. ছদরুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামাল উদ্দিন, সহসভাপতি সাইফুল ইসলাম রিপন, এম ফজরুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফরুজ ইসলাম মুন্না, সহসভাপতি কল্যাণ কান্তি রায় সানি , সাধারণ সম্পাদ শাহ রুহেল আহমদ প্রমূখ। এসময় পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. আব্দুল আহাদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. আব্দুল হাই, পাইলগাঁও ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলী আফজল, কলকলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফখরুল হোসেন, আশারকান্দি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুস সত্তার, সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সালেহ আহমদ ছোট মিয়া, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল তাহিদ, মীরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আতিকুর রহমান, পৌর যুবলীগ নেতা আকমল হোসেন ভূইয়া,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রচার সম্পাদক আক্তার হোসেন সহ আওয়ামী লীগ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

  •