যুক্তরাষ্ট্র মিশিগানে করোনা ভাইরাসে এখনো পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে সর্বমোট ২৫ জন

45

কামরুজ্জামান হেলাল, যুক্তরাষ্ট্র:

মিশিগানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের দিনে দিনে বেড়েই চলেছে এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে ২৫ জনে। মিশিগানের স্বাস্থ্য ও মানবসেবা অধিদফতরের সূত্রের মাধ্যমে জানা গেছে। মিশিগানে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে আড়াইশ’র বেশি লোক সমাগম করা যাবে না বলে নির্দেশনা জারি করেছেন মিশিগানের গভর্ণর গ্রেচেন হুইটমার। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ার সাথে সাথে স্থানীয় জনজীবনে প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে আক্রান্তের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। রিপোর্ট অনুসারে করোনা মিশিগানের ইঙ্গাম, কেন্ট, মন্টকালাম, ওকল্যান্ড, সেন্ট ক্লেয়ার, ওয়াশটানাও এবং ওয়েইন কাউন্টিতে থাবা বসিয়েছে। সংশ্লিষ্ট কাউন্টি স্বাস্থ্য বিভাগের মতে, বেশিরভাগ রোগীরই অন্যের সাথে সীমিত যোগাযোগ ছিল।

রিপোর্ট অনুসারে করোনায় মিশিগানের ইঙ্গাম কাউন্টিতে ১ জন, কেন্ট কাউন্টি ৩জন, মন্টকালাম কাউন্টি ১জন, ওকল্যান্ড কাউন্টিতে ৬ জন, সেন্ট ক্লেয়ার ১জন, ওয়াশটানাও ৩ জন, বে কাউন্টি ১জন, শারলেভিক্স কাউন্টি ১ জন, ম্যাকম্ব কাউন্টি ১জন, ওয়েইন কাউন্টি ৬জন এবং হোম কাউন্টিতে ১জন আক্রান্ত হয়েছে। এদিকে গভর্ণর গ্রেচেন হুইটমার গত মঙ্গলবার রাজ্যে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবারের এক আদেশে কে-১২ স্কুল বন্ধ করার ঘোষণা করেছেন। মিশিগানে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে আড়াইশ’র বেশি লোক সমাগম করা যাবে না বলে নির্দেশনা জারি করেছেন মিশিগানের গভর্ণর গ্রেচেন হুইটমার। এমনকি ধর্মীয় সমাবেশের ক্ষেত্রেও এই নির্দেশ কার্যকর হবে। আগামী ৫ এপ্রিল পর্যন্ত এটা বলবৎ থাকবে। আজ শুক্রবার নির্দেশনা জারি করা হয়। নির্দেশনায় আগামী ৫ এপ্রিল পর্যন্ত সমস্ত স্কুল বন্ধ থাকবে। গভর্নর এক বিবৃতিতে বলেছিলেন, করোনভাইরাস ছড়ানোর হাত থেকে আমরা সবচেয়ে বেশি লোককে রক্ষা করতে পারি। তিনি বলেছেন, ভাইরাসের বিস্তার রোধে আমরা যথাসাধ্য চেষ্টা চালিয়ে যাবো। আমাদের শিশু, পরিবার এবং ব্যবসায়ীদের এ সময়ে যে, তাদের প্রয়োজনীয় সমর্থন রয়েছে তা নিশ্চিত করতে হবে। তবে এমন কঠোর না হয়ে নমনীয় হতে হবে। একে অপরের প্রতি যত্নবান হতে হবে। নির্দেশনায় থিয়েটার, অডিটোরিয়াম, ক্যাফেটেরিয়া বা গ্যালারিও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। তবে মসজিদ, গির্জা, মুদি দোকান এবং ভোক্তা সামগ্রীর দোকান, গণপরিবহন ও উৎপাদন বা শিল্প এই নির্দেশনায় পড়বে না যদিও কয়েকটি সিটিতে শুক্রবারে জুম্মার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়নি করোনা ভাইরাসের কারনে, শিশুদের ডে-কেয়ার গুলো উন্মুক্ত থাকবে তা সেটা স্কুলের সঙ্গে যুক্ত থাকুক বা আলাদা থাকুক। কার্যনির্বাহী আদেশ অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞার ফলে এই জরুরি পরিস্থিতিতে রাষ্ট্র বা ফেডারেল গঠনতন্ত্রের দ্বারা সুরক্ষিত সুরক্ষাগুলি সঙ্কুচিত করা হয় না।অন্যদিকে রাজ্যের স্বাস্থ্য আধিকারিকরা বাসিন্দাদের ঘন ঘন হাত ধোয়া, সামাজিক দূরত্ব অনুশীলন এবং ভিড় এড়াতে অনুরোধ করেছেন।

  •