তাহিরপুরে দোকানপাট বন্ধ রেখে মানববন্ধন

12

তাহিরপুর প্রতিনিধি
সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের পল্লীতে সন্ত্রাসী মহড়ার দেয়ার পর ভীত হয়ে ব্যবসায়ীরা দোকানপাট তিন ঘন্টা বন্ধ রেখেছিল। ঘটনাটি ঘটেছে তাহিরপুরের বালিজুরী ইউনিয়নের আনোয়ারপুর বাজারে। এ ঘটনার খবর পেয়ে তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বাজারে এসে ব্যবসায়ীদের আশ্বস্ত করেন এবং দোকানপাট খুলে দেওয়া হয়।
আনোয়ারপুর বাজার বণিক সমিতি সুত্রে জানা যায়, পূর্ব বিরোধের জের ধরে স্থানীয় একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সোমবার সকালে বাজারে এসে মহড়া দেওয়া প্রায় ৩/৪ ঘন্টা আনোয়ারপুর বাজারের সকল দোকানপাট বন্ধ রেখেছিল ব্যবসায়ীরা। পরে এ ঘটনার প্রতিবাদে তাৎক্ষনিক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বণিক সমিতির সভাপতি ফয়সাল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম গণী, সহ সভাপতি আব্দুল বারিক, তাহিরপুর উপজেলা যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম, ব্যবসায়ী আবুল কাশেম, নিজাম শাহ, আব্দুস সালাম,রুহুল আমিন,রয়েল, মাহমুদ আলী, বাজারের পাহারাদার নুরুল হক।
এ সময় বক্তারা বলেন, স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বর ও তার আত্মীয় স্বজনসহ একটি সন্ত্রাসী গ্রæপ দীর্ঘদিন যাবত ব্যবসায়ীদের চাঁদা দাবীসহ নানাভাবে হয়রানী ও নির্যাতন করে আসছে। আমরা এ সকল সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় সোমবার সকালে বাবুল মেম্বারের নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী গ্রæপ শতাধিক লোকজন নিয়ে মিছিল সহকারে অস্ত্রশস্ত্রসহ বাজারে এসে মহড়া দিলে আমরা আতঙ্কিত হয়ে দোকানপাট বন্ধ রাখি।
আনোয়ারপুর বাজার বণিক সমিতির সভাপতি ফয়সাল আহমেদ বলেন, আমি ঘটনাটি তাহিরপুর থানায় অবগত করলে তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আতিকুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল এসে বাজারের দোকানপাট খুলে দেন।
অভিযুক্ত স্থানীয় ইউপি সদস্য বাবুল মেম্বার জানান, আমার কোন সন্ত্রাসী গ্রæপ নেই। বাজারে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে কোন মহড়াও দেইনি। আমাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য আমার প্রতিপক্ষ গ্রæপ আমার বিরুদ্ধে এসব অপপ্রচার চালাচ্ছে। বরং গতরাতে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী বালিজুরী ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি জিয়া উদ্দিনকে মারধর করে গুরুতর আহত করে। বর্তমানে সে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আমরা একটি প্রতিবাদ নিয়ে বাজারে যাই। কোন সন্ত্রাসী মহড়া দেইনি।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে তাহিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে আনোয়ারপুর বাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খুলে দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত থানায় কেউ কোন লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

  •