বিয়ানীবাজারে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষক গ্রেফতার

25

 

বিয়ানীবাজার প্রতিনিধি
বিয়ানীবাজারের পল্লিতে স্কুল ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত মঙ্গলবার রাতে উপজেলার দুবাগ ইউনিয়নের গজুকাটা গ্রাম থেকে সাজন আহমদ (২০) নামের ওই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়। সে একই গ্রামের আকদ্দছ আলীর ছেলে। এ ঘটনায় তার অপর দুই সহযোগী পলাতক রয়েছে।
দশম শ্রেণীর ওই ছাত্রী বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার সময় উত্যক্ত করতো অটোরিক্সা চালক সাজন। বিষয়টি ওই ছাত্রী তার পিতাকে জানালে তিনি সাজনের পরিবারে বিচারপ্রার্থী হন। এতে ক্ষুব্দ হয়ে গত ১৩মার্চ রাত সাড়ে ৯টার দিকে তাকে বাড়ি থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় সাজন, তার বন্ধু বোরহান এবং মোহন। এদিন রাতে প¦ার্শবর্তী একটি নির্জন মাঠে নিয়ে তাকে রাতভর ধর্ষণ করে সাজন। পরদিন ইউপি সদস্য জয়নুল ইসলাম তাকে অপহরণকারীদের কাছ থেকে উদ্ধার করে নিজ হেফাজতে রাখেন। ইউপি সদস্যের বাড়িতে আরো ২দিন থাকাকালে সেখানেও সাজন গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। সাজন ইউপি সদস্য জয়নুলের অটোরিক্সা ভাড়ায় চালায় বলে জানা গেছে। পরে ইউপি সদস্যের বাড়ি থেকে ভিকটিমকে অনেকটা অবরুদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করেন চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম। এসব বিষয়ে জানতে ইউপি সদস্য জয়নুল ইসলামের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।
এ ঘটনার পর ইউপি সদস্য জয়নুল ইসলাম, ধর্ষক ও তার সহযোগীদের হুমকির কারণে ভিকটিমের পিতা এতদিন মামলা দায়ের করতে পারেননি বলে পুলিশের কাছে জানিয়েছেন। এদিকে ধর্ষিতার পিতার লিখিত অভিযোগ পেয়েই ধর্ষককে গ্রেফতার করে পুলিশ।
গতকাল বুধবার সকালে ধর্ষিতার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
বিয়ানীবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অবনী শংকর কর বলেন, ধর্ষিতার পিতার অভিযোগ পাওয়ার সাথে সাথে আমরা অভিযান শুরু করি এবং ধর্ষককে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই।