ভূমিকম্পের গুজব, মধ্যরাতে আজান ও উলুধ্বনি

20

 

মাধবপুর প্রতিনিধি

মধ্যরাতে যখন মানুষ ঘুমিয়ে তখন হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় করোনাভাইরাস ও ভূমিকম্পের গুজব রটানো হয়েছে। একইসাথে আকাশ থেকে পাথর পরবে, একদিকে নেমে যাবে আকাশ এবং বৃহস্পতিবার রাতে হতে পারে পৃথিবী ধ্বংস এমন গুজবও রটানো হয়েছে।

এদিকে এমন গুজবে বিভ্রান্ত হয়ে মাধবপুরে রাত ১০টার পর থেকে রাত ১টা পর্যন্ত আজান দিতে থাকেন স্থানীয়রা। তারপরই শুরু হয় আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে মিছিল। অন্যদিকে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা উলুধ্বনির সাথে কীর্তন করতে শুরু করেন।

করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকতে যখন মানুষকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার কথা বলা হচ্ছে তখন এমন গুজবের কারণে মিছিলকে ঘিরে সাধারণ মানুষের মাঝে করোনা ছড়িয়ে পড়তে পারে।

জানা যায়, মাধবপুর উপজেলার বিভিন্ন মসজিদের মাইকে ‘এলাকাবাসী আপনারা ওঠেন, রাত দুইটায় ভূমিকম্প হবে’ বলে প্রচার করা হয়। সাথে সাথে দেয়া হয় আজান। যার কারণে মানুষ ভয়ে একত্রিত হতে থাকে। এদিকে মাধবপুর উপজেলার চৌমুহনী ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে মধ্যরাত থেকে ভূমিকম্পের গুজবে শুরু হয় আজান এবং আজানের পরপর অনেকে মিলে মিছিল, কীর্তন উলুধ্বনি দিয়েছেন কিছু এলাকায়।

চৌমুহনী ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামের বাসিন্দা শাহজাহান মিয়া ও সাতপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সৌরভ বিশ্বাস বলেন, রাত ১২টার ভূমিকম্পের গুজবে মুসলিম ধর্মের মানুষ আল্লাহু আকবার ধ্বনিতে মিছিল শুরু করেন। অন্যদিকে হিন্দু ধর্মের মানুষ ঘর থেকে বের হয়ে ভয়ে সবাই এক হয়ে কীর্তন শুরু করেন। যা করোনা সংক্রমণের কারণ হতে পারে।

শাহজাহানপুর ইউনিয়নের সুরমা গ্রামের শাকিবুল আলম চৌধুরী এবং জগদীশপুর ইউনিয়নের চারাভাঙ্গা গ্রামের সৈয়দ মো. রাসেল বলেন, মধ্যরাতে মানুষের ঘুম নষ্ট করে আতঙ্ক সৃষ্টি করে আজান দেয়া হচ্ছে সেই সাথে উলুধ্বনি। এটা কেমন কথা? আমরা সচেতন হব কবে? আমরা নিজ উদ্যোগে কয়েকটি মসজিদ কমিটিকে বলে গুজব বিরুদ্ধে প্রচার চালিয়েছি।

এসব গুজবের বিষয়ে মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল হোসেন বলেন, গুজব রটনাকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

  •