দেশের সকল চা বাগানে মজুরি ও রেশনসহ ছুটি ঘোষণার দাবি

9

 

স্টাফ রিপোর্টার

মহামারী করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে চা শ্রমিকদের রক্ষার স্বার্থে অবিলম্বে সিলেটসহ সারা দেশের সকল চা বাগানে মজুরি ও রেশনসহ ছুটি ঘোষণার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করেছে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশন । শনিবার (২৮ মার্চ) সকাল ১১ টায় সিলেটের জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলাম বরাবর  স্মারকলিপি প্রদান করেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ফেডারেশন এর কেন্দ্রীয় অাহবায়ক হৃদেশ মুদি৷

স্মারকলিপিতে বলা হয়, মহামারি করোনায় এক উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে গোটা দেশ। ইতিমধ্যেই সাধারণ ছুটির অাওতায় বন্ধ হয়েছে সকল সরকারি -বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন শ্রমিক ট্রেডগুলো৷ জরুরি প্রয়োজন ব্যাতিত সবাইকে নিজগৃহে নিরাপদে অবস্থান করার কথা বলা হচ্ছে। অথচ একই দেশের নাগরিক হয়ে সারাদেশের ১৬৬ টি চা বাগানে ছুটি নেই। চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকি ও আতঙ্কের মধ্যে কাজ করছে প্রায় দেড় লক্ষ শ্রমিক। চা বাগানগুলোতে কয়েকদিন  আগেও দর্শনার্থী সমাগম, শ্রমিকদের মধ্যে অসচেতনতা এবং সর্বোপরি বাগানে স্বাস্থ্যসেবার অপ্রতুলতার কারণে এই সেক্টরে সংক্রমনের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। অথচ মালিকপক্ষের একচেটিয়া মুনাফার স্বার্থে এই জাতীয় দুর্যোগের সময়েও চা বাগানকে ছুটির আওতায় আনা হয়নি। যার পরিণাম ভয়াবহ হতে পারে।

স্মারকলিপিতে ৪ দফা দাবি উত্থাপন করা হয়। দাবিগুলো হলো- অবিলম্বে সিলেটসহ সারা দেশের সকল চা বাগানে মজুরি ও রেশনসহ ছুটি ঘোষণা করতে হবে। বাগানে সার্বক্ষণিক ডাক্তারের ব্যবস্থা করতে হবে৷ কোন শ্রমিক অাক্রান্ত হলে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা বাগান কর্তৃপক্ষকে করতে হবে ও শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার পর্যাপ্ত সাবান ও জীবানুনাশক সরবরাহ করতে হবে।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাসদ মার্ক্সবাদী সিলেট জেলার নেতা এবং বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশন সিলেট জেলার আহবায়ক কমরেড সুশান্ত সিনহা সুমন এবং সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট সিলেট নগরের সাংগঠনিক সম্পাদক ছাত্রনেতা ফাহিম আহমদ প্রমুখ।

 

  •