তাহিরপুরে যুবক খুনের ঘটনায় ৮ জনকে আসামি করে অভিযোগ

6

 

তাহিরপুর প্রতিনিধি

সুনামগঞ্জের তাহিরপুরের পল্লীতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ১ জন নিহত ও ৪ জন আহত হওয়ার ঘটনায় ৮ জনকে আসামি করে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার (২৮ মার্চ) দুপুরে নিহতের বড় ভাই উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের ইছবপুর গ্রামের মৃত নেকবর ওরফে নিম্বু সিকদারের ছেলে নবী হোসেন সিকদার এ অভিযোগ করেন। একই গ্রামের লায়েছ সিকদারের ছেলে হাবিবুর সিকদারকে প্রধান আসামী করে তাহিরপুর থানায় মোট ৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর বাড়ির পিছনের জলার হাওর থেকে গরু নিয়ে বাড়ি আসার সময় লেম্বু সিকদারের ছেলে কালাম সিকদারের পথরোধ করে পূর্ব বিরোধের জের ধরে গালমন্দ শুরু করে ইছবপুর গ্রামের লায়েছ সিকদারের ছেলে মনির সিকদার (২৮) ও হাবিবুর সিকদারের ছেলে রাজু সিকদার (২০)।

এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। ঘটনার খবর পেয়ে লায়েছ সিকদারের ছেলে হাবিবুর ও কয়েকজন সহযোগী মিলে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে কালামের উপর এলোপাথাড়ি হামলা করে। এ খবর পেয়ে নিহত হানিফ ও তার ভাই কবির ঘটনাস্থলে গেলে তাদেরকেও মারধর করে গুরুত্বর আহত করে। আহত অবস্থায় স্থানীয় পল্লী চিকিৎসক তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেন। রাতে হানিফের অবস্থার অবনতি হলে তাকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করার সময় সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালেই হানিফ মারা যায়।

হানিফের মৃত্যুর খবর পাওয়ার পর থেকে হাবিবুরসহ তার আত্বীয় স্বজনরা পলাতক রয়েছে। নিহত হানিফ সিকদারের মরদেহ ময়না তদন্ত শেষে শুক্রবার রাতে ইছবপুর গ্রামের গোরস্থানে দাফন করা হয়।

তাহিরপুর অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আতিকুর রহমান অভিযোগ প্রাপ্তির সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আসামীদের গ্রেপ্তারে পুলিশি চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।

  •