মিশিগানে করোনা পরিস্তিতিতে প্রবাসীরদের জন্য প্রবাসীর ভালোবাসা

107
কামরুজ্জামান হেলাল, যুক্তরাষ্ট্র:
মিশিগানে করোনা সংকটে প্রবাসীরা, সাহায্যের হাত বাড়ালেন যারা” করোনার কারণে মিশিগানের বিভিন্ন শহরে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা কার্যত গৃহবন্দি। রাজ্য জুড়ে চলছে স্টে হোম, সেভ লাইভস’ অর্থাৎ, বাড়িতে থাকুন, জীবন বাঁচান। নানান সমস্যায় পড়ছেন অনেকেই। কাজ বন্ধ তাই রোজগারও বন্ধ। অনেকের দিন আনি দিন খাই অবস্থা। অর্থের অভাবে আর পাঁচ জনের মতো খাদ্য সামগ্রীও মজুত করতে পারেনি তারা। এরই মাঝেই তাদের দিকে কেউবা আর্থিক কেউবা পেশাগত সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। মিশিগানে বাঙালি কমিউনিটির জন্য নিবেদিত প্রাণ নাজেল হুদা। করোনা সংকটের শুরু থেকেই তিনি ফেসবুকে লাইভের মাধ্যমে যে কোন ধরণের সাহায্য সহযোগিতার হাত প্রসারিত করেছেন। সেই সাথে তিনি দিক নির্দেশনা ও উপদেশ মূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। তার বক্তব্য একটাই মানুষের পাশে সব সময় আছি এবং থাকবো। আল্লাহ আমাদের হেফাজত করুন।নাজেল হুদা শুধু এই করোনা সংকটেই নয়, সারা বছরই তিনি নিজেকে কমিউনিটির সেবায় নিয়োজিত রাখেন। সবেমাত্র দেশ থেকে এসেছেন। এদের কেউবা কাজে মাত্র ডুকেছেন। কারো বা কাজই জুটেনি। এসেই পা দিয়েছেন করোনা নামক বিপদে। তাদের এই বিপদে পাশে দাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন হ্যামট্রাম্যাক সিটি কাউন্সিলম্যান কামরুল হাসান। তিনি আজ ফেইসবুক লাইভে এসে এক ঘোষণায় জানান, সদ্য দেশ থেকে আগতদের পাশে দাড়াবে বাংলাদেশী আমেরিকান পাবলিক এফিয়ার্স কমিটি, ব্যাপাক। তিনি জানান, ইতিমধ্যে ব্যাপাকের পক্ষ থেকে তিনি নিজে এবং সৈয়দ সায়েদুল হক ও সেলিম আহমদ হ্যামট্রাম্যাক ও ডেট্রয়েট শহরে বসবাসরত এ ধরণের ১০টি পরিবার চিহ্নিত করেছেন। প্রথম পর্যায়ে আগামী শুক্রবারের মধ্যে ৫টি পরিবারকে ৫শ ডলার করে দেয়া হবে। অপর ৫টি পরিবারকে পরবর্তীতে শুক্রবার সম পরিমাণ অর্থ দেয়া হবে। ব্যাপাক এই ১০টি পরিবারকে মোট ১০ হাজার ডলার অর্থ সাহায্য করবে। তরুণ মর্টগেজ ব্যাংকার নাফিসা হোসেইন। যেকোনো পেশাগত সহযোগিতার জন্য হাত বাড়িয়েছেন তিনি। করোনাভাইরাস মহামারিতে অর্থনৈতিকভাবে নাজুক অবস্থায় পড়েছেন প্রবাসিরাও । পরিস্থিতি মোকাবিলায় সরকার মার্কিন নাগরিকদের জন্য ২ ট্রিলিয়ন ডলারের সহায়তা ঘোষণা করেছে। উন্মুক্ত করা হয়েছে আরও নানা সুযোগ-সুবিধা। এসব সুযোগ সুবিধা গ্রহণে সহযোগিতা করবেন তিনি। যে কোন সময় তার সাথে সরাসরি অথবা ফোনে যোগাযোগ করা যাবে। যোগাযোগের ঠিকানা : ৬১৫ ডব্লিউ লাফায়েতে বুলেভার্ড, ডেট্রয়েট, এমআই ৪৮২২৬। ফোন নম্বর হচ্ছে (৩১৩-৩৭৩-১২৩৯/৫৮৬-২৭৭-৯৩৮২/৮৭৭-৪৭০-২২৯৭ (ফ্যাক্স) অথবা NafisaHussain@quickloans.com এই ইমেইল ঠিকানায় যোগাযোগ করা যাবে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের জেরে বেকার হয়ে পড়েছেন হাজার হাজার প্রবাসী বাংলাদেশি। একদিকে স্টে হোম আদেশ অন্যদিকে ভাইরাস আতঙ্ক। একজন আর এক জনের সঙ্গে দেখা করতে চাইছে না। তাদের সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন মন্জুরুল করিম তুহিন। তিনি বিনামূল্যে সরকারি বেকার ভাতা (Unemployment) ফাইল করে দেবেন যে কাউকে। যারা এখনও বেকার ভাতা ফাইল করেননি, তাদেরকে এই ফোন নম্বরে ৩১৩ ৯৫৭ ১৮৫৩ যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।একইভাবে ফ্রিতে সরকারি বেকার ভাতা (Unemployment) ফাইল করে দেবেন আব্দুল জব্বার। তার সাথে এই নম্বরে ৩১৩-৪১৫-৫৯৬২ যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। খাজা আফজলও ফ্রিতে সরকারি বেকার ভাতা (Unemployment) ফাইল করে দেবেন। এজন্য ৫৮৬-৯৩০-৮৫৩৭ নম্বরে যোগাযোগ করতে হবে।
  •