ওসমানীর চিকিৎসক-নার্সসহ ২২ জনের নমুনা পরীক্ষা

51

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করোনা আক্রান্ত নারীর অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক, নার্স ও আয়াসহ ২২ জনের নমুনা পরীক্ষা উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে এ বিষয়ে হাসপাতালে গঠিত বোর্ড সিদ্ধান্তক্রমে চিকিৎসক ও নার্সদের করোনা পরীক্ষাসহ হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা দিয়েছে।

এর আগে আজ সোমবার (১৩ এপ্রিল) হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি এক নারী করোনা সনাক্তের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর তাকে ওসমানী হাসপাতাল থেকে ডা. শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের আইসোলেশনে নেয়া হয়। তবে নবজাতকটি সুস্থ রয়েছে।

সোমবার (১৩ এপ্রিল) সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, এ জন্য হাসপাতালের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটির সদস্যরা নির্ধারিত করেছেন কার কার নমুনা পরীক্ষা হবে এবং হোম কোয়ারেন্টিনে কয়জনকে পাঠাতে হবে। এরইমধ্যে চিকিৎসক ও নার্সদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

করোনা পজিটিভ ওই নারী সুনামগঞ্জ সদরের বাসিন্দা। চারদিন আগে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাপসাতালে অস্ত্রোপচারে তার এক নবজাতকের জন্ম হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অস্ত্রোপচার হওয়া ওই নারীর নবজাতকেরও করোনা পরীক্ষা করার উদ্যোগ নিয়েছে। পাশাপাশি ওই নারীর অস্ত্রোপচারকারী চিকিৎসক, নার্স ও আয়াসহ ২২ জনের নমুনা পরীক্ষা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এছাড়া ওই নারীর আত্মীয়-স্বজনের রক্তের নমুনা পরীক্ষা বা হোম কোয়ারেন্টিনের নেওয়ার প্রক্রিয়া হিসেবে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাপসাতাল কর্তৃপক্ষ সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে সুনামগঞ্জের সিভিল সার্জনকে অবহিত করেছেন। সিভিল সার্জন এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবেন।

প্রসঙ্গত, গতকাল রোববার সুনামগঞ্জে প্রথম কোনো করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। যার বাড়ি দোয়ারাবাজার উপজেলার। ওই নারীর বয়স ৫০ বছর। এ ঘটনার পর বিকেলে সুনামগঞ্জ জেলাকে লকডাউন ঘোষণা করে জেলা প্রশাসন।

  •