দেশের যেসব জেলা এখনও করোনামুক্ত

46

সবুজ সিলেট ডেস্ক
দেশে গত ৮ মার্চ করোনাভাইরাসজনিত কোভিড-১৯ রোগে প্রথম আক্রান্ত তিনজন রোগী শনাক্ত করে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর)। আক্রান্তদের মধ্যে দুইজন ছিলেন ইতালিফেরত। একজন তাদের সংস্পর্শে গিয়ে সংক্রমণ হয়েছেন। এর ১০ দিন পর দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় একজনের। এরপর প্রথম দিকে কয়েকজন করে নতুন আক্রান্ত রোগীর খবর মিললেও গত ক’দিনে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এ সংখ্যা। সেই সঙ্গে মৃত্যুর সংখ্যাও বাড়ছে। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে মানুষকে ঘরে রাখতে রাজপথের পাশাপাশি পাড়া-মহল্লায় টহল দিচ্ছে সশস্ত্র বাহিনী, র‌্যাব ও পুলিশ। এখন পর্যন্ত দেশের ১১টি জেলা করোনামুক্ত রয়েছে। আইইডিসিআরের তথ্য এমনটিই বলছে।

১১টি জেলা হলো- খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, নওগাঁ, নাটোর, ভোলা, মেহেরপুর, মাগুরা ও ঝিনাইদহ। সরকারি হিসাব অনুযায়ী দেশের ৬৪ জেলার মধ্যে ৫২টিতেই করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি শনাক্ত হয়েছে ঢাকা মহানগরীতে।

সোমবার রেকর্ড ছাড়িয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। নতুন করে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪৯২ জন। মারা গেছে ১০ জন। এই নিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত মারা গেছে ১০১ জন। এখন পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৯৪৮ জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ৮৫ জন।

আইইডিসিআরের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায়,ঢাকায় করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা এক হাজার ১৭ জন হয়েছে। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকায় ৯৭৪ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। অন্যদিকে রাজধানীর বাইরে অন্তর্ভুক্ত ঢাকার উপজেলাগুলোয় আরো ৪০ জন শনাক্ত হয়েছে।

এর পাশাপাশি অন্য জেলায় দ্রুত গতিতে বাড়ছে করোনা রোগী। এর মধ্যে ঢাকার পাশের জেলা নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুরেও অনেক রোগী শনাক্ত হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে এ পর্যন্ত ৩৮৬ জন ও গাজীপুরে ১৭৩ জন আক্রান্ত হয়েছে।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) ওয়েবসাইট থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্য থেকে জানা যায়, ঢাকার পাশের জেলা নরসিংদীতে করোনা রোগীর সংখ্যা ১০৫ জন হয়েছে। ঢাকার পাশের দুই জেলা মুন্সীগঞ্জে ৩৩ আর মানিকগঞ্জে ছয়জন আক্রান্ত হয়েছে। ঢাকা বিভাগের জেলা কিশোরগঞ্জে ৭৭ জন, মাদারীপুরে ২৬ জন, গোপালগঞ্জে ২১ জন, টাঙ্গাইলে ১০ জন, শরীয়তপুরে সাতজন, রাজবাড়ীতে সাতজন ও ফরিদপুরে চারজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিভাগের চট্টগ্রাম জেলায় ৩৯ জন, লক্ষ্মীপুরে ২১ জন, কুমিল্লায় ১৯ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১১ জন, চাঁদপুরে আটজন, নোয়াখালীতে তিনজন, ফেনীতে দুজন,কক্সবাজারে একজন ও বান্দরবানে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

সিলেট বিভাগের সিলেট জেলায় তিনজন, মৌলভীবাজারে দুজন, হবিগঞ্জে একজন ও সুনামগঞ্জে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

রংপুর বিভাগের রংপুর জেলায় তিনজন, গাইবান্ধায় ১২ জন, দিনাজপুরে ১০ জন, নীলফামারীতে নয়জন, ঠাকুরগাঁওয়ে পাঁচজন, কুড়িগ্রামে দুজন, লালমনিরহাটে দুজন ও পঞ্চগড়ে একজন আক্রান্ত হয়েছে।

খুলনা বিভাগের খুলনায় একজন,যশোরে একজন, নড়াইলে দুজন, বাগেরহাটে একজন ও চুয়াডাঙ্গা জেলায় একজন আক্রান্ত হয়েছে।

ময়মনসিংহ বিভাগের ময়মনসিংহ জেলায় ২১ জন, জামালপুর জেলায় ২০ জন, নেত্রকোনায় ১৪ জন ও শেরপুর জেলায় ১১ জন আক্রান্ত হয়েছে।

বরিশাল বিভাগের বরিশাল জেলায় ২১ জন, বরগুনা জেলায় ১০ জন, ঝালকাঠিতে চারজন, পিরোজপুরে চারজন ও পটুয়াখালীতে দুজন রোগী আক্রান্ত হয়েছে।

এ ছাড়া রাজশাহী বিভাগের রাজশাহী জেলায় চারজন, জয়পুরহাটে দুজন, পাবনায় একজন ও বগুড়ায় একজন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

  •