ওসমানী থেকে পালিয়ে যাওয়া নারী শামসুদ্দিনে ভর্তি

45

সবুজ সিলেট ডেস্ক
সিলেটেরে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় করোনা শনাক্ত নারী পালিয়ে যাওয়ার পর তার সন্ধ্যান মিলেছে। বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) রাতে তার করোনা শনাক্তের পর থেকে ওই নারী হাসপাতাল থেকে পলাতক ছিলেন। এর পর শুক্রাবার দুপুরে তাকে সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের আইসলেশনে নিয়ে আসা হয়েছে।
এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মণ্ডল। তবে ওই নারী গর্ভবতী কি আন সে তথ্য তিনি জানেন না বলেও জানান।
এদিকে হাসপাতালের ভর্তি তথ্যে ওই নারীর ঠিকানা নগরীর এয়ারপোর্ট এলাকায় লিখা হয়েছিলো বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালকা ডা.হিমাংশু লাল রায় সিলেট ভয়েসকে বলেন, গাইনি বিভাগে সে ভর্তি ছিলো। ইতোমধ্যে তার একটা সন্তানের জন্ম হলেও সন্তান মারা যায়। পরে তার অবস্থা অনেকটা ভালো ছিলো। এমতাবস্থায় তার সামান্য জ্বর থাকায় গত মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) তার নমুনা সংগ্রহ করা হয়। ২৩ এপ্রিল রাতে তার নমুনা পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর থেকে ওই নারীকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে তাকে রাতেই খোঁজে বের করে আজ শুক্রাবার শামসুদ্দিনে ভর্তি করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, ওই নারীর সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন আমরা তাদের কোয়ারেণ্টাইনে পাঠানোর ব্যবস্থা করছি।
বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজে স্থাপিত বিশেষায়িত ল্যাবে টেস্টে তার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে।
ওইদিন ওসমানী মেডিকেলের করোনা পরীক্ষাগারে ১৪৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ১৬ জনের করোনা পজিটিভ আসে।
এরমধ্যে সিলেটের ৫, সুনামগঞ্জের ৮ ও হবিগঞ্জের ৩ জন রয়েছেন। তবে আগের দিন মৌলভীবাজারের দুজন করোনা শনাক্ত হলেও বৃহস্পতিবার ওই জেলার কারো করোনা পজিটিভ ধরা পড়েনি।
এদিকে বৃহস্পতিবারের ১৬ জন মিলে সিলেট বিভাগে এপর্যন্ত ৪৯ জনের করোনা পজিটিভ ধরা পড়েছে। তবে সিলেট জেলার প্রথম করোনা আক্রান্ত ডা. মঈন উদ্দিন গত ১৫ এপ্রিল মারা গেছেন।

  •