৩৯ যাত্রী নিয়ে পটুয়াখালির বাস সিলেটে, ফিরিয়ে দিলো পুলিশ

65

সবুজ সিলেট ডেস্ক
করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত লকডাউন চলা অবস্থায় ধানকাটার শ্রমিক পরিবহনের নামে পটুয়াখালি থেকে ৩৯ জন যাত্রী নিয়ে সিলেট আসে একটি বাস। পরে নারীসহ ১১ যাত্রীকে রেখে পালিয়ে যাওয়ার সময় বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ১১টার দিকে ওসমানীনগর থেকে পুলিশ অগ্রদূত পরিবহনের ওই বাসকে আটক করেছে।
জানা গেছে, পটুয়াখালি থেকে বুধবার রাতে ছেড়ে আসা বাসটি বৃহস্পতিবার রাত ৯টার সময় ১১ যাত্রী নিয়ে সিলেট নগরীর কদমতলী এসে পৌঁছে। যাত্রীদের সবাই নবীগঞ্জ ও কানাইঘাট থানার বাসিন্দা।
খবর পেয়ে দক্ষিণ সুরমা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তার আগেই যাত্রীদের রেখে পালিয়ে যায় বাসটি। পরে পুলিশ ওসমানী নগর থানার সাথে যোগাযোগ করলে শেরপুরে চেকপোস্ট বসিয়ে বাসটি এবং চালকসহ ২৫ জনকে আটক করে। এ সময় তাদের সাথে পটুয়াখালির কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মো. শহিদুল হকের দেওয়া একটি প্রত্যয়নপত্র পাওয়া যায়। আবু হাসনাত মো. শহিদুল হক বাসটিকে পরিবহনের অনুমতি দেন বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে পটুয়াখালির কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বক্তব্য জানতে তার মোবাইল ফোন নম্বরে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে ফোন দেওয়া হলে নিরাপত্তাপ্রহরী আবদুল্লাহ আল মামুন কল রিসিভ করেন। এসময় কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে ৩৯ জনকে পরিবহনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।
এ ব্যাপারে কদমতলী ফাঁড়ির ইনচার্জ ফায়েজ উদ্দিন ফয়েজ বলেন আমরা খবর পেয়ে ঘটনা স্থলে যাই তবে বাস পাইনি।
সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও মিডিয়া) লুৎফুর রহমান বলেন, পুলিশ খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে যায়। এর আগেই বাসটি পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ওসমানীনগর থানার সাথে যোগাযোগ করে বাসটি আটক করে। তিনি জানান কদমতলীতে রেখে যাওয়া ১১ যাত্রীকে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছে পুলিশ।
আর ২৫ যাত্রীর ব্যাপারে ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাশেদ মোবারাক জানান- পটুয়াখালি থেকে আসা বাকি বাসযাত্রীদেরকে সিলেট থেকে তাদের নিজ এলাকায় ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। তবে যাদের বাড়ি সিলেট বিভাগের অন্যান্য জেলায় রয়েছে তাদেরকে স্ব স্ব থানা হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করবে।

  •