বিভিন্ন দেশে শিথিল হচ্ছে করোনা লকডাউন

12

সবুজ সিলেট ডেস্ক
করোনা মহামারিতে ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে জারি করা হয়েছিল লকডাউন। বিভিন্ন দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমতে থাকায় দেশগুলো লকডাউনের কড়াকড়ি শিথিল করতে যাচ্ছে। তবে এক্ষেত্রে একেক দেশ একেক পন্থায় অগ্রসর হচ্ছে। কিছু দেশ স্কুল পুনরায় চালু করলেও বন্ধ থাকছে অনেক দেশে। আবার কোথাও ফেস মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক হলেও কোথাও থাকছে পরামর্শ আকারে। মার্কিন বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সুইডেনের শিশুরা ফুটবল খেলতে পারলেও স্পেনে তাদের ঘর থেকে বের হওয়ার অনুমতি নেই। শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যে জিমন্যাসিয়াম, সেলুন ও বউলিং ক্লাব খোলার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। যদিও দেশটির হাসপাতালে এখনও ভাইরাসজনিত জরুরি অবস্থা বিরাজ করছে।

খবরে বলা হয়েছে, লকডাউন প্রত্যাহার বা শিথিল করার কোনও নির্দিষ্ট প্রক্রিয়া নেই যা সব দেশ অনুসরণ করতে পারে। বিভিন্ন দেশের সরকার ও বিজ্ঞানীরা এখনও বেশ কিছু অজানা বিষয় মোকাবিলা করছে। তাদের সিদ্ধান্তের সঙ্গে জীবন-মৃত্যু সম্পর্কিত হওয়ায় সবাই নিজেদের মতো করে সাবধানতা অবলম্বন করছে।

ফ্রান্সে সরকার শিশুদের বাইরে পাঠানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার দায়িত্ব পরিবারের ওপর ছেড়ে দিয়েছে। ১৭ মার্চ থেকে পুরো ফ্রান্সে লকডাউন জারি করা হয়। ১১ মে থেকে তা শিথিল হতে শুরু করবে। এক ফরাসি কর আইনজীবী হেলেন আলস্টন বলেন, এই সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন। আমি মনে করি মেয়েকে স্কুলে পাঠাবো। কারণ এতে জীবনে কিছু মাত্রায় স্বাভাবিকতা আসে। কিন্তু আমরা তাকে ইচ্ছাকৃতভাবে বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে ফেলতে চাই না। হয়তো আমার সিদ্ধান্ত পাল্টে যেতে পারে।

স্পেনেও অভিভাবকদের এমন জটিল সিদ্ধান্তের মুখে পড়তে হচ্ছে। কয়েক সপ্তাহ পর রবিবার থেকে শিশুদের মুক্ত বাতাসে যাওয়ার জন্য তারা অনুমতি দেবেন কিনা। যদিও এক্ষেত্রে শিশুদের ‘১-১-১’ নীতি মেনে চলতে হবে। এই নীতি অনুসারে, দিনে এক ঘণ্টার বেশি নয়, ঘর থেকে ১ কিলোমিটার ব্যাসার্ধে এবং একজন প্রাপ্ত বয়স্কের তত্ত্বাবধানে শিশুদের থাকতে হবে।

১২ মার্চ থেকে জারি করা লকডাউন প্রত্যাহারের পরিকল্পনা প্রকাশ করেছে বেলজিয়াম। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জানান, ১১ মে থেকে সবগুলো দোকান খুলবে, পরের সপ্তাহে খুলবে স্কুল। তবে এক ক্লাসে ১০ জনের বেশি শিক্ষার্থী থাকতে পারবে না। ক্যাফে ও রেস্তোরাঁ বন্ধ থাকবে ৮ জুন পর্যন্ত। গণ পরিবহনে যাতায়াতের সময় মাস্ক পরতে হবে।

সংক্রমণ কমতে শুরু করায় ইতালির বিভিন্ন এলাকায় বিধিনিষেধ শিথিল হতে শুরু করেছে। ১৪ এপ্রিল থেকে সীমিত পরিসরে খুলতে শুরু করেছে দোকানপাট। বই, স্টেশনারি, বাচ্চাদের জামা কাপড়ের দোকান খুলছে। এছাড়া কম্পিউটার ও কাগজপত্র তৈরির কাজ শুরুর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। এবার দেশটি দ্বিতীয় ধাপে লকডাউন শিথিল করার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

চেক রিপাবলিক শুক্রবার মুক্ত যাতায়াতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে।

জার্মানিতে সোমবার (২০ এপ্রিল) ৮০০ বর্গ মিটার আয়তনের চেয়ে ছোট দোকানপাট খোলা হচ্ছে। তবে গাড়ি, সাইকেল ও বইয়ের দোকানের ক্ষেত্রে আয়তন সংক্রান্ত কোনও শর্ত আরোপ করা হচ্ছে না। এই সব দোকানে প্রবেশ করতে হলে কিছু কড়া নিয়ম মেনে চলতে হবে। কিছু রাজ্যে চিড়িয়াখানাও খোলা হচ্ছে। শুধু স্যাক্সনি রাজ্যে উপাসনার উপর নিষেধাজ্ঞা অন্য রাজ্যের তুলনায় আগেই তুলে নেওয়া হচ্ছে। পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতির স্বার্থে কয়েকটি রাজ্যে নির্দিষ্ট কিছু ক্লাসে শিক্ষার্থীরা স্কুলে যেতে পারবে। বাকি রাজ্যগুলিতে মে মাসে এমন কিছু ক্লাস খোলা হবে।

ভারতেও লকডাউনের মধ্যে বেশ কয়েকটি ক্ষেত্রে ছাড়ের ঘোষণা করা হয়েছে। গ্রামীণ এলাকায়, ছোট বাজার ও লোকালয়ে এবার থেকে অনাবশ্যকীয় নির্দিষ্ট পণ্যের কিছু দোকান খোলা থাকবে। ভারতীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় শুক্রবার এই বিষয়ে নির্দেশ জারি করেছে। তবে কোভিড সংক্রমিত অঞ্চলে এই ছাড় প্রযোজ্য হবে না।

লকডাউন শিথিল করার এই তোড়জোড়ের পেছনে মূল কারণ অর্থনৈতিক। লকডাউনে অর্থনীতি স্থবির হয়ে পড়ায় বড় বড় কোম্পানিগুলো লোকসানের মুখে পড়েছে এবং সরকার অর্থ সংকটে পড়তে যাচ্ছে। বিশ্বজুড়েই এই প্রবণতা বিদ্যমান। মাত্র ৫ সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে ২৬ মিলিয়ন মার্কিন নাগরিক বেকার হয়েছেন। যা ১৯৩০ সালের মহামন্দার পর সবচেয়ে বেশি। এই অবস্থায় লকডাউন শিথিল করে কারখানা ও বাণিজ্য শুরু করার চাপ বাড়ছে। কিন্তু সময়ের আগেই লকডাউন প্রত্যাহার হয়ে গেলে আবারও সংক্রমণের আশঙ্কা রয়েছে।

প্রথম দিকে মনে হয়েছিল জাপান সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছে। দেশটি ক্লাস্টার ধরে মোকাবিলার পথ নেয়। কিন্তু শুক্রবার জাপানের চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা সতর্কতা জানিয়ে বলেছেন, জরুরি চিকিৎসা ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে যাচ্ছে এবং সুরক্ষা সরঞ্জাম ও টেস্ট কিটের ভয়াবহ সংকট দেখা দিয়েছে।

জাপানিজ অ্যাসোসিয়েশন ফর অ্যাকুইট মেডিসিনের প্রধান তাকেশি শিমাজু বলেন, আমরা এখন আর স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে পারছি না। এক্ষেত্রে বলতে পারি যে জরুরি স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ভেঙে পড়া শুরু হয়ে গেছে। আশঙ্কাজনক রোগীদের স্বাস্থ্য সেবার জন্য আমি বিশেষভাবে উদ্বিগ্ন।

বিভিন্ন দেশের সরকারি তথ্য অনুসারে, বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ লাখ ৯০ হাজারের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ইউরোপের লক্ষাধিক ও যুক্তরাষ্ট্রে অর্ধলক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২৮ লাখ।

  •