দোকান থেকে বউ নিয়ে ফিরলো ছেলে, থানায় মা!

33

সবুজ সিলেট ডেস্ক
মা ছেলেকে পাঠালেন মুদির দোকানে, আর ছেলে বাড়িতে ঢুকলেন বউ নিয়ে! ২৯ এপ্রিল, বুধবার ভারতের উত্তরপ্রদেশের গাজ়িয়াবাদের সাহিবাবাদ থানায় এমন অভিযোগ করেছেন এক বয়স্ক নারী। ওই নারীর এমন অভিযোগে আবাক হন থানার পুলিশ।

ছেলে গুড্ডুর (২৬) বিরুদ্ধে অভিযোগ করে তিনি স্পষ্টভাবে জানান, এই বিয়ে তিনি মেনে নেবেন না। এর মধ্যেই এই ঘটনা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ভাইরাল হয়ে গেছে। এমন খবর প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, থানার সামনে বসে রয়েছেন মা। তার সামনে দাঁড়িয়ে নববধূ। মায়ের অভিযোগ, গত দু’মাস বাড়িতেই ছিল তার ছেলে। কিন্তু এ দিন মুদিখানায় যাওয়ার নাম করে বেরিয়ে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে!

ছেলের মা এই বিয়ে সম্পর্কে কিছুই জানতেন না, তিনি এই বিয়ে মানতে চাইছেন না। এই অবস্থায় সাহিবাবাদ পুলিশ একটি সমাধানের রাস্তা খুঁজে বের করেছেন। তারা সাবিত্রীর বাড়ি মালিককে অনুরোধ করেছে, লকডাউনের সময় গুড্ডু ও তার নতুন স্ত্রী সাবিত্রীকে যেন ওই বাড়িতে থাকতে দেয়া হয়।

পুলিশকে গুড্ডু জানান, দু’মাস আগেই হরিদ্বারের আর্য সমাজ মন্দিরে সবিতাকে বিয়ে করেন তিনি। কিন্তু সাক্ষী না মেলায় সেই সময়ে বিয়ের রেজিট্রেশন কাগজ পাননি তিনি। বিয়ের কাগজ নেয়ার জন্য আবারো হরিদ্বারে যাওয়ার চিন্তাও করেছিলেন তিনি। কিন্তু করোনার জেরে লকডাউন জারি করায় সেই পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।

তিনি আরো জানান, আর বিয়ের কাগজ না থাকায় বাড়িতেও নিয়ে যেতে পারছিলেন না নতুন বৌকে। হরিদ্বার থেকে ফেরার পরে দিল্লিতে একটি ভাড়া বাড়িতে থাকতে শুরু করেন সবিতা। গুড্ডু ভেবেছিলেন, লকডাউন শেষ হলেই এর সমাধান করবেন। কিন্তু লকডাউনের মেয়াদ বাড়তেই থাকে। তাই গুড্ডু আর অপেক্ষা করতে চাননি।

এ বিষয়ে গুড্ডু বলেন, ‘আজ ঠিকই করেছিলাম, সবিতাকে বাড়ি নিয়ে আসব।’ সবিতার বাড়িওয়ালাও ঘর খালি করার জন্য চাপ দিতে থাকে। তাই বাধ্য হয়েই মুদিখানায় যাওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে বেরিয়ে নতুন বৌ নিয়ে হাজির হন বাড়িতে।

তবে পুলিশি মধ্যস্থতায় সমাস্যাটির শেষ পর্যন্ত সমাধান হয়। সবিতার বাড়ির মালিককে পুলিশ অনুরোধ করেন, নবদম্পতিকে যেন লকডাউনের সময়টুকু থাকতে দেয়া হয়। এই সময়ের মধ্যেই গুড্ডুকে পারিবারিক বিবাদ মিটিয়ে নিতেও পরামর্শ দিয়েছে পুলিশ।