ত্রাণের জন্য কাউন্সিলর তুহিনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ

353

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন ২১নং ওয়ার্ডের ত্রাণ বঞ্চিত গরীব লোকজন। সিলেট-তামাবিল সড়কের সোনারপাড়ায় তারা প্রায় এক ঘন্টা সড়ক অবরোধ করে কাউন্সিলর আবদুর রকিব তুহিনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করেন।

পরে সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী গিয়ে ত্রাণ দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। শুক্রবার বেলা আড়াইটা থেকে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত কয়েক শত নারী পুরুষ এই বিক্ষোভে অংশ নেন।

বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ, কাউন্সিলর তুহিন তাদের এলাকার গরীব লোকজনকে ত্রাণ সহায়তা থেকে বঞ্চিত রেখেছেন। তার কাছে বারবার ধর্ণা দেওয়ার পরও তিনি ত্রাণ দিতে অস্বীকৃতি জানান। সরকার থেকে পর্যাপ্ত সহায়তা দেওয়া হলেও কাউন্সিলর তুহিন তার ইচ্ছেমতো তা বিতরণ করছেন। ওয়ার্ডের অন্যান্য জায়গায় ত্রাণ দেওয়া হলেও সোনারপাড়া এলাকার গরীব লোকজনকে তিনি বঞ্চিত রেখেছেন।

বিক্ষোভের খবর পেয়ে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সোনারপাড়ায় যান সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তিনি বিক্ষোভকারীদের অভিযোগ শুনে, আগামী রবিবার সোনারপাড়া এলাকায় সরকারি সহায়তার চাল বিতরণের আশ^াস দেন। মেয়রের আশ্বাস পেয়ে বিক্ষোভকারী সড়ক থেকে সরে যান।

এ ব্যাপারে কাউন্সিলর আবদুর রকিব তুহিন জানান, ইতোমধ্যে সিটি করপোরেশনের ‘খাদ্য ফান্ড’ থেকে প্রাপ্ত ত্রাণ দুই হাজার ৭শ’ পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে সরকার থেকে খাদ্য সহায়তা বাবত যে চাল আসছে তা বন্টন করা হচ্ছে।

তার ওয়ার্ডে চালের চাহিদা ৩০ টন হলেও এখন পর্যন্ত তিনি পেয়েছেন ৮ টন। সব এলাকায় এক সাথে দেওয়া সম্ভব না হওয়ায় একেক মহল্লা করে দেয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সোনারপাড়ায়ও ঘরে ঘরে ত্রাণের চাল পৌঁছে দেওয়া হবে। কিন্তু এলাকার কিছু লোক গরীব লোকজনকে উস্কে দিচ্ছেন।

সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, করপোরেশনর থেকে কাউন্সিলররা চাল পাওয়ার পর তা ওজন দিয়ে প্যাকেট করে বিতরণ করতে হয়। মাস্টাররুল করে এই চাল বিতরণ করতে কিছুটা সময় লাগে। তাই এক সাথে পুরো ওয়ার্ডে চাল বিতরণ সম্ভব নয়। বিক্ষোভকারীরা সেটা বুঝতে চাইছেন না। পরে তাদেরকে রবিবার চাল দেওয়ার আশ্বাস দেওয়ায় তারা শান্ত হয়ে ফিরে গেছেন।

  •