৯৯ শতাংশ নিশ্চিত মৃত্যু হয়েছে কিম জং উনের, দাবি একটি সূত্রের

62

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::
উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনকে ঘিরে রহস্য বাড়ছে ক্রমেই। কেউ বলছেন, মৃত্যু হয়েছে তাঁর। আবার কেউ বলছেন বহাল তবিয়তে রয়েছেন উত্তর কোরিয়ার সর্বাধিনায়ক। তিনি নাকি সমুদ্র সৈকতের রিসর্টে বেশ আরামেই আছেন। চিন, আমেরিকা, দক্ষিণ কোরিয়ার মতো একাধিক দেশ এই বিষয়ে খোঁজখবর শুরু করেছে।উত্তর কোরিয়ার প্রাক্তন বাসিন্দা এক ব্যক্তি দাবি করেছেন মৃত্যুর ব্যাপারে ৯৯ শতাংশ নিশ্চিত। উত্তর কোরিয়ার ডিটেক্টর জি সিয়ং দক্ষিণ কোরিয়াকে জানিয়েছেন, তাঁর কাছে খবর আছে যে গত সপ্তাহেই অপারেশনের পর মৃত্যু হয়েছে কিম জং উনের।
তিনি আরও জানিয়েছেন যে কিমের এরপর তাঁর বোন কিম ইয়ো জং ক্ষমতায় আসবেন এটাই স্বাভাবিক, কিন্তু তা সত্ত্বেও ওই দেশে এখন কিমের উত্তরসূরি খোঁজার পর্ব চলছে।
আমেরিকার দাবি করোনা সংক্রমণের ভয়েই প্রকাশ্যে আসছেন না কিম। অবশ্য আমেরিকা একা নয়, এই দাবিকে সমর্থন করছে দক্ষিণ কোরিয়াও। উল্লেখ্য, উত্তর কোরিয়াতে এখনও কোনও করোনা সংক্রমণের খবর নেই।
দক্ষিণ কোরিয়ার ইউনিফিকেশন মন্ত্রী কিম ইয়ন চুল জানান, উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রনায়ক ইচ্ছাকৃতভাবেই দেশের জন্মবার্ষিকী পালন করতে চাইছেন না। করোনা যাতে ছড়িয়ে না পড়ে, তার জন্যেই হয়ত লুকিয়ে রয়েছেন তিনি। কিমের ঠাকুরদার জন্মদিনে উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। কিমের ঠাকুরদা কিম ইল সাং উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন। ১৫ই এপ্রিল প্রতিবছর এই দিনটি পালন করা হয়, তবে এবার তা হয়নি।
দক্ষিণ কোরিয়ার সংসদে দাঁড়িয়ে ইউনিফিকেশন মন্ত্রী বলেন আমাদের গোয়েন্দা রিপোর্ট বলছে কিম সুস্থ রয়েছেন। কারণ উত্তর কোরিয়ার জনমানসে স্বাভাবিক জীবন যাত্রা বহাল। সেখানে কোনও বিচ্যুতি নেই। সুতরাং কিমের অসুস্থতা ও মৃত্যু নিয়ে যে খবর ছড়িয়েছে, তা জল্পনা ছাড়া আর কিছু নয়।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও দক্ষিণ কোরিয়ার এই মতকে সমর্থন জানিয়েছে। তাঁদের দাবি, ওনসানের ব্যক্তিগত রিসর্টে বিশেষ ট্রেনে করে গিয়ে আত্মগোপন করে রয়েছেন কিম। কিমকে শেষ দেখা গিয়েছিল ১১ই এপ্রিল, নিজের দলের পলিটব্যুরো বৈঠকে। ওসাকার এশিয়া প্রেস ওয়েবসাইটের সম্পাদক ও উত্তর কোরিয়ার সাংবাদিক দ্য গার্ডিয়ানকে জানিয়েছেন, কিম নিজেকে আইসোলেশনে রেখেছেন, যাতে করোনা সংক্রমণ থেকে বাঁচতে পারেন।
সূত্র: kolkata24x7