সিলেটে ব্যাংকগুলোতে সামাজিক দূরত্ব মানছে না কেউ

25

স্টাফ রিপোর্টার
সিলেটে সামাজিক দূরত্ব না মেনে ব্যাংক লেনদেনের জন্য দীর্ঘ লাইন ধরেছে নগরীর বেশ কয়েকটি ব্যাংকের শাখায়। শুক্র ও শনিবার ব্যাংকগুলো বন্ধ থাকায় রবিবার ব্যাংক খোলার সঙ্গে সঙ্গে দীর্ঘ লাইনে দাড়িয়েছেন ব্যাংকগুলোর গ্রাহকরা। অনেকে ব্যাংক খোলার নির্ধারিত সময় সকাল ১০টার আগেই লাইনে দাড়াতে দেখা যায়।

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে সাধারণ ছুটির মধ্যেও ব্যাংকে রয়েছে গ্রাহকের ব্যাপক ভিড়। বিশেষ প্রয়োজনে ঘর থেকে বের হলেও মেনে চলতে হবে ৩ ফুট দূরত্ব- এমন নির্দেশনা থাকার পরও নির্দিষ্ট দূরত্ব মানছেন অনেকেই।

আজ রোববার (৩ মে) নগরীর পূর্ব জিন্দাবাজার বারুতখানা পয়েন্ট ডাচ বাংলা ব্যাংক শাখায় এমন অসাবধানতার চিত্র দেখা যায়। সকাল ৭টা থেকে টাকা তুলতে মানুষের ঢল নেমেছিল ব্যাংকের সামনে। সামাজিক দূরত্ব না মেনে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জায়গা থেকে টাকা তুলতে ভিড় করেছিলেন গ্রাহকরা।

ব্যাংক সংশ্লিষ্টরা জানান, দেশে করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়লেও ব্যাংকে কমেনি সাধারণ মানুষের ভিড়। লকডাউনের মধ্যেও ব্যাংক থেকে টাকা তোলার চাপ বেড়েছে ব্যাপক হারে। ফলে সাধারণ ছুটির মধ্যেও সীমিত আকারের ব্যাংকিং লেনদেনে গ্রাহকদের চাপ সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা। তবে ব্যাংকের বাইরে দীর্ঘ লাইন থাকলেও ভেতরে নির্দিষ্ট দূরত্ব মেনে লেনদেন করা হচ্ছে।

ডাচ বাংলা ব্যাংকের জুনিয়র ফরেন রেমিটেন্স অফিসার নাজমুল হোসাইন তারেক বলেন, আমরা সকাল থেকে এখন পর্যন্ত অন্তত ৩০০ মানুষকে সেবা দিয়েছি। মানুষ সুশৃঙ্খলভাবে এলে আমরা সুন্দরভাবে সেবা দিতে পারবো। ব্যাংকে আসা মানুষ মাস্ক ও গ্লাভস পরে এলে আমাদের সেবা দিতে সুবিধা হবে।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম মিয়া বলেন, আমি খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যাই। যাওয়ার পর মানুষকে বুঝিয়ে বলেছি শৃঙ্খলা মেনে সারিবদ্ধভাবে আপনারা সেবা নিতে যান। আমি ব্যাংক কর্মকতাদের সাথেও কথা বলেছি। তাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অনুরোধ করেছি ভিড় কমাতে আপনারা ব্যাংকের আরো কয়েকটি শাখা খোলার ব্যবস্থা করেন।