নগরীর ফুটপাতেও বসতে পারবে না হকার

13

স্টাফ রিপোর্টার
করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে সিলেটের সকল শপিংমল, বিপনীবিতান, দোকানপাট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। আজ শুক্রবার (৮ মে) নগরভবনে ব্যবসায়ী নেতাদের নিয়ে বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

এর পাশাপাশি নগরীর ফুটপাতেও হকার বসতে পারবে না। হকার না বসতে পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে। তবুও যদি নির্দেশ অমান্য করে হকার বসে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহ্বান করা হয়।

কারণ- করোনা সংক্রমনের জন্য ফুটপাতের হকাররাই বেশী ঝুঁকি হতে পারেন। তাদের বিক্রিকৃত কাপড়-চোপড় অধিকাংশই নারায়নগঞ্জ, ঢাকা, নরসিংদী সহ বিভিন্ন করোনা আক্রান্ত জেলা থেকে আসে। যার ফলে তাদের কারনেই করোনা সংক্রমিত হতে পারে।

তাই সকল শপিংমল, বিপনীবিতান, দোকানপাট বন্ধ রাখার পাশাপাশি সকল ফুটপাতে সকল হকার বসাও নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি এটিএম শোয়েব বলেন, সিলেটবাসীকে করোনা থেকে রক্ষা করতে ব্যবসায়ীরা তাদের বিরাট ক্ষতি হওয়া স্বত্তেও দোকানপাট বন্ধ রাখার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন- তার জন্য ব্যবসায়ীদের ধন্যবাদ জানাই।

ফুটপাতে হকারদের সম্পর্কে তিনি বলেন, হকাররা যাতে কোনভাবে ফুটপাতে বসতে না পারে। কারণ- হকারদের কাপড়-চোপড় ঢাকা, নারায়নগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন করোনা আক্রান্ত জেলা থেকে আসে। হকারদের কাছ থেকেও করোনা সংক্রমিত হতে পারে। তাই তাদেরকে কোনভাবেই বসতে দেওয়া যাবে না। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক সহ স্থানীয় প্রশাসনের সাথে আমরা কথা বলেছি।

সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্সের সহ-সভাপতি শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, যেকোন সময় ফুটপাত মানুষ চলাচলের জন্য। একটা শহরকে সৌন্দর্য, ভাবমূর্তি, মানমর্যাদার বিষয় হচ্ছে ফুটপাত। রাস্তাঘাট বন্ধ করে ফুটপাতে হকাররা বসবে এমনটা হতে পারে না। এখন যেহেতু সকল ধরণের দোকানপাট বন্ধ করা হয়েছে। এ সুযোগে ফুটপাতে একদল অসাধু ব্যবসায়ীরা বসার চেষ্টা করতে পারে। তাদেরকে উৎখাত করতে সিটি কর্পোরেশন ও স্থানীয় প্রশাসনকে বলা হয়েছে। ফুটপাতে যারা ব্যবসা করছে তাদের বিরুদ্ধে তড়িৎ ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান তিনি।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, করোনা সংক্রমণ থেকে সিলেটবাসীকে রক্ষা করতে ব্যবসায়ীরা সকল প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। পাশাপাশি ফুটপাতও বন্ধ করা হয়েছে। ফুটপাতে কোন হকার বসতে পারবে না।

তিনি বলেন, ফুটপাতে হকার বসলে সিলেটের বাইরে থেকে কাপড়-চোপড় আনবে। যাতে করোনা সংক্রমনের ঝুঁকি রয়েছে। তাই ফুটপাতে কোন ধরণের হকার বসতে দেওয়া হবে না। এ বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে।

  •