স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই: কমলগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার

21

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি

করোনাভাইরাস আতঙ্ককে উপেক্ষা করে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার হাট-বাজারগুলোতে সকাল থেকেই কেনাকাটার ধুম লেগেছে। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা উদ্যোগ নিলেও তা কাজে আসছে না। মাইকিং, লিফলেট বিতরণসহ নিয়মিত পুলিশি টহল জোরদার অব্যাহত থাকলেও তা মানা হচ্ছে না কমলগঞ্জ হাট-বাজারগুলোকে।

সামাজিক-শারীরিক দূরত্বতো দুরের কথা যত্রতত্র গ্রামগঞ্জের মানুষ একে অপরের সাথে উৎসবমুখর পরিবেশে মেলামেশা করছেন। ফলে গ্রামাঞ্চলের মানুষের মাঝে করোনা সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। উপজেলার একাধিক হাট-বাজারে গিয়ে দেখা গেছে এমন চিত্র।

জানা যায়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে শহর অঞ্চলে অঘোষিত লকডাউন ও টানা সাধারণ ছুটি থাকায় সারাদেশ থেকে অনেকেই বাড়িতে চলে আসেন। আর আসন্ন ঈদ উপলক্ষে সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারে কেনাকাটায় ভিড় জমান ক্রেতারা। কাপড়ের দোকানে বেশি মহিলা ও ছোট ছোট শিশু-কিশোরদের লক্ষ করা যায় ।

সোমবার (১১ মে) সরেজমিনে কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগর বাজার ঘুরে দেখা যায়, শপিংমলসহ অলি গলিতে মানুষের উপচে পড়া ভিড়। সামাজিক দূরত্ব না মেনে এবং অনেকেই মাস্ক ব্যবহার না করে কেনাকাটা করছেন। হাট-বাজারগুলোতে লেগেছে ঈদের আমেজ।

এদিকে সোমবার শশেরনগর বাজারে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর মৌলভীবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. আল-আমীন বাজারে ভেজাল বিরোধী অভিযানে আসলে, সামাজিক দূরত্ব না মেনে শিশু-কিশোরসহ মহিলারা ভিড় করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এসময় তিনি বিভিন্ন দোকান মালিককে সতর্ক করে দিয়ে সরকারী শর্ত মেনে দোকান পরিচালনা করতে বলেন।

এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নাসরিন চৌধুরী বলেন, ক্রেতা-বিক্রেতা সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সরকারি নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধেও তাৎক্ষণিক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  •