যুক্তরাষ্ট্রে তিন দিন পর আবারো করোনার হানা: স্ত্রীর পর স্বামীও প্রাণ হারালেন করোনাতে

18

কামরুজ্জামান হেলাল, যুক্তরাষ্ট্র:

মোট ২৬০ জন বাংলাদেশী জীবন দিলেন মরণব্যাধী করোনায় আক্রান্ত হয়ে স্ত্রীর পর স্বামীও চলে গেলেন। এক মাসের ব্যবধানে একই পরিবারের দুই জন সদস্য প্রাণ হারালেন। সন্তানরা এক মাস আগে মাকে হারিয়ে শোকাচ্ছন্ন ছিলেন। স্নেহময়ী মায়ের শোক কেটে উঠতে না উঠতেই চলে গেলেন পরিবারের ছায়া বাবা। নিষ্ঠুর করোনার কাছে হার মানলেন স্বামী এবং স্ত্রী। স্ত্রী নেহারুল নেসা করোনায় আক্রান্ত হয়ে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেছিলেন। ঠিক এক মাসের ব্যবধানেই প্রিয়তমা স্ত্রীর পর স্বামী হাজী ফইজ উদ্দিন গত ২০ মে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে ব্রঙ্কসের নর্থ সেন্টাল হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে… রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৭৯ বছর। মৃত্যুকালে তিনি ৫ সন্তানসহ আত্মীয়- স্বজন রেখে গেছেন। জানা গেছে, হাজী ফইজ উদ্দিন পরিবার- পরিজন নিয়ে কুইন্সের রিচমন্ডহিলে বসবাস করতেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মেহেরুন নেসা এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। স্ত্রী মৃত্যুর পরই ফইজ উদ্দিন করোনায় আক্রান্ত হলে তাকে ব্রঙ্কসের নর্থ সেন্টাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি গত ২০ মে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। তাকে প্রথমে কুইন্সের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়, সেখানে সিট না থাকায় তাকে ব্রঙ্কসে ভর্তি করা হয়। হাজী ফইজ উদ্দিনের দেশের বাড়ি সিলেটের বিয়ানীবাজারের মোল্লাপুর ইউনিয়নের পাতন গ্রামে। তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছেন বিয়ানীবাজার সমিতির সভাপতি মুকবুল রহিম চুনই এবং সধারণ সম্পাদক মুহিবুর রহমান রুহেলসহ কার্যকরি কমিটির কর্মকর্তাবৃন্দ। নিউইয়র্কের ব্রুকলীনে বসবাসকারী তৈয়বুর নূর করোনায় আক্রান্ত হয়ে ব্রুকলীনের মেথোডিস্ট হাসপাতালে গত ২০ মে সন্ধ্যায় ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে… রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৫ বছর। মৃত্যুকালে তিনি পরিবার পরিজন রেখে গেছেন। চট্টগ্রাম এসোসিয়েশনের সদস্য এবং কানেকটিকাট কম্যুনিটির অত্যন্ত পরিচিত মুখ জাকের আহমেদ গত ২০ মে কানেকটিকাটের হাডফোর্ড হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহে… রাজেউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬০ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী- সন্তানসহ আত্মীয় স্বজন রেখে গেছেন। জানা গেছে, জাকির আহমেদ দীর্ঘ দিন থেকেই কিডনী সমস্যা এবং ব্রেইন টিউমারে ভুগছিলেন। প্রায় দুই সপ্তাহে আগে তার শরীরের অবস্থা খারাপ হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন। তার দেশের বাড়ি চট্টগ্রামের আনোয়ারায়। তার মৃত্যুতে চট্টগ্রাম সমিতির কর্মকর্তারা শোক প্রকাশ করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

  •