ঈদের নামাজে মসজিদের প্রবেশদ্বারে সাবান ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে

13

স্টাফ রিপোর্টার
পবিত্র ঈদুল আযহার নামাজে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সিলেট মহানগর পুলিশ। বৃহস্পতিবার (৩০ জুলাই) সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (গণমাধ্যম) জ্যোর্তিময় সরকার সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ আহ্বান জানানো হয়।

স্বাস্থ্যবিধি মানতে নগরবাসীকে ১১ টি নির্দেশনাও দেয় পুলিশ।

এতে করোনা ভাইরাসের কারণে ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের জীবনের ঝুঁকি বিবেচনা করে এ বছর ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে নিকটস্থ মসজিদে ঈদের নামাজ আদায় করার জন্য অনুরোধ করা হয়। সেই সাথে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামায়াতের ব্যবস্থা করা যেতে পারে। ঈদের নামাজের জামায়াতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। ঈদের নামাজের জামায়াতের পূর্বে সম্পূর্ন মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিস্কার করতে হবে। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিগণ প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জীবানুমুক্ত করে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদের প্রবেশদ্বারে সাবান, হ্যান্ডস্যানিটাইজার রাখতে হবে। প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসস্থান থেকে ওযু করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওযু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিতে হবে। ঈদের নামাজের জামায়াতে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লীগণকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে।

আরও জানানো হয়, মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে। শিশু, বায়োবৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তি ঈদের নামাজের জামায়াতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিত কল্পে, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে। করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে মসজিদে জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। করোনা মহামারী থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য পবিত্র ঈদের নামাজ শেষে মহান রাব্বুল আলামিনের দরবারে দোয়া করার জন্য খতিব ও ইমামগণকে অনুরোধ করা হলো এবং সম্মানিত খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে। এসএমপি কন্ট্রোল রুম (০৮২১-৭১৬৯৬৮, ০১৭১৩-৩৭৪৩৭৫, ০১৯৯৫-১০০১০০) সার্বক্ষনিক (২৪/৭) আপনার সেবায় নিয়োজিত। আকস্মিক বিপদের মুহুর্তে ৯৯৯ নম্বরের সহায়তা নেয়ার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়।

  •