কুলাউড়ায় হাকালুকি হাওরে ঝুঁকিপূর্ণ ট্রান্সফরমার ও বিদ্যুৎ লাইন এখন মরন ফাদঁ

20

মোঃ নাজমুল ইসলাম,কুলাউড়া ::
কুলাউড়া উপজেলার হাকালুকি হাওর এলাকায় ঝুঁকিপূর্ণ ট্রান্সফরমার ও বিদ্যুৎ সংযোগ লাইনের কারনে যেকোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। এ অঞ্চলে নৌকাযোগে যাতায়াত কারী স্থানীয় বাসিন্ধারা ঝুঁকিপূর্ণ এ বিদ্যুৎ লাইন ও ট্রান্সফরমারের জন্য বড় ধরনের প্রাণহানীর আশংকায় নানা আতংকের মধ্যে রয়েছেন। আলোর আশায় হাওর এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগের ঝুলন্ত তার এখন মরন ফাদঁ হিসেবে পরিনিত হয়েছে বিদ্যুৎ ব্যবহার কারীদের।

সরেজমিন কুলাউড়ার ভুকশিমইল ইউনিয়নের বড়দল অংশে অবস্থিত হাকালুকি হাওর অঞ্চলে গিয়ে দেখাযায়, বিদ্যুৎ (ওয়াপদা) বিভাগের একটি ট্রান্সফরমার পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় দাঁড়িয়ে আছে। এছাড়াও বাশেঁর উপর দিয়ে টানা বিদ্যুৎ সংযোগের লাইন অনেকটা ঝুলে গিয়ে পানিতে ছুঁই ছুঁই অবস্থা। বর্তমানে বর্ষাকাল থাকায় হাকালুকি হাওর এখন পানিতে টুইটুম্বর। ভুকশিমইল ইউনিয়নের বড়দল এলাকায় (পালেরমোড়া)নামক একটি স্থান পর্যটকদের কাছে আকর্ষনীয় হয়ে উঠায় পানির সময় দুরদূরান্ত থেকে অনেক পর্যটকরা সেখানে বেড়াতে আসেন। নৌকা ভাড়া নিয়ে নিয়ে তারা হাওরে যাওয়ার পথে প্রায় সময় ঝুঁকিপূর্ণ এই বিদ্যুৎ লাইনের মুখোমুখি হতে হয়। কেউ আগে থেকে জানা থাকলে সাবধানে ওই জায়গা অতিক্রম করেন আবার অনেকে ভূলক্রমে বিদ্যুৎ লাইনে ধাক্কা খেয়ে পানিতে পড়ে যান। তেমনি ঈদের দুইদিন পর উপজেলার ব্রাহ্মনবাজারের খালেদ নামে একজন ভ্রমন পিপাসু ব্যাক্তি তার পরিবার-পরিজন নিয়ে হাওরের ওই স্থানে নৌকা নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিলেন, কিন্তু সেলফি তুলতে ব্যস্ত থাকায় অসাবধান বসত বিদ্যুৎ এর তারে ধাক্কা লেগে তিনি পানিতে পড়ে গিয়ে আহত হোন,পরে স্থানীয় লোকজন তাকে পানি থেকে তুলে উদ্বার করেনন। এর কয়েকদিন আগে একই জায়গায় উপজেলার হাজিপুর ইউনিয়নের মতিন মিয়া নামে এক পর্যটক তার পরিবারের সদস্যদের বিনোদনের জন্য নৌকা নিয়ে বেড়াতে গিয়েছিলেন পালেরমোড়া নামক ওই স্থানে। আনন্দের ফাঁকে তাদের নৌকা ট্রান্সফরমারে গিয়ে ধাক্কা লাগলে তার শিশু ছেলে মুহিব নৌকা থেকে পড়ে গিয়ে ট্রান্সফরমারে শরীর লেগে যায়। কিন্তু ওই সময় বিদ্যুৎ না থাকায় বড় ধরনের দূর্ঘটনা থেকে রক্ষা তার পরিবার। তা নাহলে তাদের আনন্দ বিষাদে পরিনত হয়ে উঠতো।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও কুলাউড়া বিদ্যুৎ বিতরণ কার্যালয় সূত্রে জানাযায়, উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নের একাংশে হাকালুকি হাওরের উপর দিয়ে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন টেনে অধিকাংশ গ্রামের লোকজনের বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয় (পিডিপি)। হাওরের উপর দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন টানার কারণে বর্ষা মৌসুমে হাওরে পানি বেড়ে যাওয়ায় নানা দুর্ঘটনার আশঙ্কা তৈরি হয়। হাওরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এসব বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের কারণে বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্ধা-পর্যটক ছাড়াও বর্ষাকালে যাতায়াতকারী নৌকার যাত্রী ও শ্রমিকরা প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন।
উপজেলার ভুকশিমইল ইউনিয়নের মহেষগৌরি গ্রামের বাসিন্ধা আনু মিয়া, জালালপুর গ্রামের মনাফ মিয়া,মুক্তাজিপুর গ্রামের জিতু মিয়া, জাব্দা গ্রামের ফাহিম উদ্দিন ও বাদেভুকশিমল গ্রামের জাহান আলী জানান, বর্ষাকাল এলে তাদের যাতায়াতের একমাত্র বাহন হয়ে উঠে নৌকা। কিন্তু হাওরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এসব বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে প্রায় দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন তারা। নিয়মিত যাতায়াতকারী নৌকাগুলোর চালক ও যাত্রীদের চলাচলের ধারণা থাকলেও নতুন কোনো নৌকা এলেই বিদ্যুৎ এর তারে জড়িয়ে দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন অনেকেই।

ভুকশিমইল ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান মনির জানান, ঝুঁকিপূর্ণ ট্রান্সফরমার ও বিদ্যুৎ লাইন নিয়ে চরম ভোগান্তিতে আছেন তার ইউনিয়নের সাধারন লোকজন। বিদ্যুৎ বিভাগ অপরিকল্পিত ভাবে হাওরের উপর দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন টেনে নেওয়ায় বর্ষাকালে প্রায়ই নানা দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছেন পর্যটক সহ অনেকেই।

কুলাউড়া আবাসিক বিদ্যুৎ বিতরণ অফিসের নির্বাহী প্রকৌশলী সামস আরেফিন বলেন, হাওরের উপর দিয়ে বয়ে যাওয়া এসব বিদ্যুৎ লাইন অনেক আগের পুরুনো। বর্তমানে রাস্তার পাশ দিয়ে নতুন খাম্বা (কুটি) বসানো হয়েছে। আসা করা যাচ্ছে হাওরের পানি কমে গেলে নতুন লাইন স্থাপনের কাজ শুরু হয়ে যাবে। এবং নতুন লাইন স্থাপন হয়ে গেলে হাওর থেকে ঝুঁকিপূর্ণ এসব বিদ্যুৎ লাইন তুলে নেওয়া হবে।