একজনের করোনা ধরা পড়ায় ভুটানে লকডাউন

16

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::
ভুটানে নতুন করে একজনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ কারণে দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। করোনা সংক্রমণ রোধে প্রথমবারের মতো লকডাউন জারি করলো দেশটির সরকার।

নতুন করে করোনা ধরা পড়া ব্যক্তি একজন নারী। তিনি সম্প্রতি অন্য দেশে থেকে ফিরেছেন। দেশে ফিরে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন। কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়া পাওয়ার পরই তার করোনা পজিটিভ বলে শনাক্ত হয়।

গত কয়েকদিনে ওই নারী রাজধানী থিম্পুতে অনেক মানুষের সংস্পর্শে এসেছিলেন বলে জানা গেছে। ২৭ বছর বয়সী ওই নারী কুয়েত সফর শেষে দেশে ফেরার পরই কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন।

কোয়ারেন্টাইন শেষে তার দেহে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর করোনা নেগেটিভ ধরা পড়ে। কিন্তু সোমবার একটি ক্লিনিকে পুনরায় টেস্ট করার পর তার দেহে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে।

নতুন করে ওই নারী করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় হিমালয়ের দেশ ভুটানে করোনায় আক্রান্ত বেড়ে দাঁড়ালো ১১৩ জনে। দেশটিতে এখনও করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে ভুটানেই সংক্রমণ সবচেয়ে কম।

ভুটানে গত মে মাসে প্রথমবার একজনের দেহে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। ৭৬ বছর বয়সী ওই ব্যক্তি যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক। তিনি ১০ দিন ভারতে থাকার পর ভুটান সফরে যান। এরপরেই তার দেহে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়।

এদিকে, ওয়ার্ল্ডোমিটারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ভুটানে এখন পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা ১১০। এর মধ্যে অধিকাংশই সুস্থ হয়ে উঠেছে। দেশটিতে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৯৬ জন। বর্তমানে করোনার অ্যাকটিভ কেস ১৪টি।

গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে প্রথম করোনার উপস্থিতি ধরা পড়ে। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে এই ভাইরাস তাণ্ডব চালাচ্ছে। কোটি কোটি মানুষ প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়া কয়েক লাখ মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে এই ভাইরাস।

তবে এখন পর্যন্ত করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। করোনা সংক্রমণে শীর্ষে রয়েছে দেশটি। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যেই ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। দেশটিতে গত জুলাই মাসের শেষের দুই সপ্তাহে ৯৭ হাজারের বেশি শিশু এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।