সিলেটে আওয়ামী লীগের কমিটিতে আসছেন রাহাত-এমরুল

6

নিজস্ব প্রতিবেদক

২০১১ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ছিলেন যথাক্রমে রাহাত তরফদার ও এমরুল হাসান। ছাত্রলীগ নিয়ে নানা বিতর্কের সময়ে দায়িত্ব পালন করলেও অপেক্ষাকৃত স্বচ্ছ ভাবমূর্তি ধরে রাখতে পেরেছিলেন তারা। এবার তার পুরষ্কারও মিলতে যাচ্ছে। সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটিতে ঠাঁই হচ্ছে সাবেক এই দুই ছাত্রনেতার।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ খসড়া কমিটি কেন্দ্রীয় দপ্তরে জমা দেন মহানগরের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন।

এরপর থেকেই জল্পনা কল্পনা চলছে কারা আসছেন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে। জমা দেওয়া কমিটি তালিকা ‘ফাঁস’ হয়ে যাওয়ায় পদবঞ্চিতদের মধ্যে ক্ষোভ-বিক্ষোভও দেখা দিয়েছে। পুরনো কমিটির কয়েকজন নেতার নাম নতুন কমিটির তালিকায় নেই বলেও বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।

তবে বড় ধরণের প্রমোশন হতে যাচ্ছেন রাহাত তরফদার ও এমরুল হাসানের। ছাত্রলীগের পরই সরাসরি মূল দলের কমিটিতে ঠাঁই হচ্ছে তাদের।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের একাধিক নেতার সাথে আলাপ করে জানা গেছে, কেন্দ্রে জমা দেওয়া মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে এবার কয়েকজন সাবেক ছাত্রনেতাকে মূল্যায়ন করা হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছেন মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রাহাত তরফদার ও এমরুল হাসান। মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটিতে তাদের সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন আহ্বায়ক, বর্তমান সিটি কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমানের নামও কেন্দ্রে জমা দেওয়া কমিটিতে রয়েছে।

তবে আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক পূর্ণাঙ্গ কমিটির যে তালিকা জমা দিয়েছেন এ ব্যাপারে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন কেন্দ্রের নেতারা। ফলে জমা পড়া কমিটিতে কিছু সংযোজন-বিয়োজন হতে পারে।

এ ব্যাপারে রাহাত তরফদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমিও এরকম শুনেছি। তবে বিস্তারিত কিছু জানি না।

আর এমরুল হাসানের সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে কাদের নাম রয়েছে এ ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে চাননি সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন।

প্রসঙ্গত, গত ৫ ডিসেম্বর সম্মেলনের মাধ্যমে গঠিত হয় সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন কমিটি। এতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন এডভোকেট লুৎফুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক হন এডভোকেট নাসির উদ্দিন খান। আর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক হন অধ্যাপক জাকির হোসেন।