বিচার না হওয়ায় ঘটছে একের পর এক গণধর্ষণ

4

সবুজ সিলেট ডেস্ক ::
দেশে গত এক সপ্তাহে বেশ কয়েকটি ধর্ষণসহ গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে৷ বাদ যায়নি প্রতিবন্ধী কিংবা ছয় বছরের শিশুও৷ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে এসব নারী ও শিশুকে৷ বিচার না হওয়াকে এই পরিস্থিতির জন্য দুষছেন মানবাধিকারকর্মীরা৷

সিলেটের এমসি কলেজে শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যার পর স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে৷ এই ঘটনায় যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ এসেছে তারা সবাই ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত৷ তাদের কেউ এখনো গ্রেপ্তার হয়নি৷

দুই দিন আগে খাগড়াছড়িতে ডাকাতি করতে ঘরে ঢুকে এক প্রতিবন্ধী তরুণীকে দলবেঁধে ধর্ষণ করা হয়েছে৷ এছাড়াও সম্প্রতি দেশের বিভিন্নস্থানে এমন আরো কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে৷ ছয় বছর ও ১৩ বছরের শিশুকেও ধর্ষণ করেছে দুর্বৃত্তরা৷

সিলেটে ছাত্রলীগ কর্মীদের গণধর্ষণের শিকার তরুণী :

শুক্রবার সন্ধ্যার পর স্বামীর সঙ্গে সিলেটের এমসি কলেজে বেড়াতে গিয়েছিলেন এক তরুণী৷ সেখানেই কয়েক যুবক স্বামীকে গাড়িতে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণ করে৷ এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর স্বামী বাদী হয়ে সিলেট নগরীর শাহপরাণ থানায় মামলা করেছেন৷ মামলায় ছাত্রলীগের ছয় কর্মী ও অজ্ঞাত তিনজনকে আসামি করা হয়েছে৷ আসামিরা হলেন, এমসি কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমান, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি, মাহফুজুর রহমান মাছুম, রবিউল হাসান, তারেক আহমদ ও অর্জুন৷

সিলেট মেট্টোপলিটন পুলিশের কমিশনার গোলাম কিবরিয়া ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বিষয়টি আমরা খুবই গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি৷ একাধিক টিম অভিযান শুরু করেছে৷ এখনও কাউকে গ্রেফতার করতে পারিনি সত্যি, কিন্তু আমাদের তৎপরতা অব্যাহত আছে৷ আমরা ভিকটিমের জবানবন্দি নিয়েছি৷ অভিযুক্তদের শিগগিরই গ্রেপ্তারের ব্যাপারে আমি আশাবাদি৷’’

এদিকে এই ধর্ষণের ঘটনার পর এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ‘ছাত্রলীগের দখলে’ থাকা হিসেবে পরিচিত একটি কক্ষে অভিযান চালিয়ে পুলিশ একটি পাইপগান, চারটি রামদা ও দুটি লোহার পাইপ উদ্ধার করে৷ কক্ষটি ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমানের৷ পরে তার নামে অস্ত্র আইনেও শনিবার আরেকটি মামলা হয়েছে৷ এই ঘটনার প্রতিবাদে আন্দোলনে নেমেছেন সিলেটের ছাত্রলীগের নেতাকর্মী ও সাধারণ শিার্থীরা৷ জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবিতে দুই শতাধিক শিক্ষার্থী কলেজের সামনে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সিলেট-তামাবিল মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন৷ শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেন, করোনা পরিস্থিতিতে কলেজ বন্ধ থাকার পরও ছাত্রাবাস কীভাবে খোলা রাখে কলেজ কর্তৃপক্ষ৷ এসব অপরাধ কর্মকাণ্ডের বিষয়ে কলেজ কর্তৃপক্ষ অবগত থাকার পরও কেন ছাত্রাবাস বন্ধ করে দেয়া হলো না৷ এজন্য কর্তৃপক্ষেরও দায় আছে বলে মনে করেন তারা৷

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কলেজের অধ্যক্ষ সালেহ আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এই হোস্টেলটি একটি অরক্ষিত হোস্টেল৷ কোন সীমানা প্রাচীর নেই৷ আমরা কয়েকবার সেখান থেকে বখাটেদের বের করে দিয়েছি৷ এমনকি রুমের তালাও পরিবর্তন করেছি৷ কিন্তু তারপরও এই ঘটনা ঘটে গেল৷ এই ঘটনায় আমি লজ্জিত, আমার মাথা নিচু হয়ে গেছে৷ আমি অসহায়৷ একটা ঐতিহ্যবাহি কলেজে এমন ঘটনা অপ্রত্যাশিত৷’’

খাগড়াছড়িতে প্রতিবন্ধী মেয়েকে গণধর্ষণ :

খাগড়াছড়িতে গত বুধবার (২৩ সেপ্টেম্বর) রাতে এক আদিবাসী পরিবারের বাড়ির দরজা ভেঙে গৃহকর্তা, তার স্ত্রী ও বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মেয়ের হাত-মুখ বেঁধে ফেলে দুর্বৃত্তরা৷ পরে বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মেয়েকে পাশের রুমে নিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণ করে৷ এসময় বাড়ির আলমারি থেকে তিন ভরি স্বর্ণ, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোন লুট করে নিয়ে যায় তারা৷ পরদিন সকালে গৃহকর্ত্রীর চিৎকারে স্থানীয়রা এসে তাদের উদ্ধার করে৷ এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার নারীর মা বাদী হয়ে অজ্ঞাত নয়জনকে আসামি করে মামলা করেন৷ শুক্রবার জেলা সদরে মানবন্ধন করেছেন সাধারণ মানুষও৷

প্রতিবন্ধী তরুণী বর্তমানে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷ শনিবার কথা বলতে একজন সাংবাদিক হাসপাতালে গেলে তরুণীর মা জানান, ‘‘ডাক্তাররা জানিয়েছেন, মেয়েটির শরীরিক অবস্থা খুবই খারাপ৷ কতদিন হাসপাতালে থাকতে হবে কিছুই জানি না৷ পুলিশ আমাদের কারো সঙ্গে কথা বলতে নিষেধ করেছে৷ আমরা ভয়ের মধ্যে আছি৷ আমি দোষীদের বিচার চাই৷’’

খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার আব্দুল আজিজ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘ঘটনার পরপরই অভিযানে নামে পুলিশ৷ আমরা ইতোমধ্যে সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছি৷ এখনও অভিযান চলছে৷ খুব শিগগিরই আমরা বাকিদের গ্রেপ্তার করবো৷’’

গাইবান্ধায় দুই দিন ধরে তরুণীকে গণধর্ষণ :

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে এক তরুণীকে (২০) দুইদিন ধরে আটকে রেখে দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে৷ এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷ গত বুধবার ফরিদপুর থেকে গোবিন্দগঞ্জে আসেন ওই তরুণী৷ এ সময় কয়েকজন যুবক তাকে গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের একটি বাড়িতে আটকে রেখে ধর্ষণ করে৷ সেখানে দুইদিন আটকে থাকার পর শুক্রবার কৌশলে পালিয়ে ওই তরুণী সরাসরি গোবিন্দগঞ্জ থানায় উপস্থিত হন৷ তার কথা শুনে অভিযান শুরু করে পুলিশ৷ পরে শাহাদৎ হোসেন (২০), জহুরুল সরকার (২৬), জাহাঙ্গীর মিয়া (৩৫) ও জাহিদ হাসান (২৭) নামে চারজনকে গ্রেপ্তার করে৷

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ারে গত ১৯ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ১৩ বছরের এক শিশুকে জোর করে তুলে নিয়ে দলবেঁধে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে মো. মাসুদসহ তিন যুবকের বিরুদ্ধে৷ বর্তমানে টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন শিশুটির অবস্থা আশঙ্কাজনক৷ টাঙ্গাইল সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের মেডিকেল অফিসার মো. নজরুল ইসলাম বলেন, এই শিশুটির যৌনাঙ্গে গভীর ক্ষত হয়েছে৷ আমরা তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষনে রেখেছি৷ মেডিকেল টিম কাজ করছে৷ পুলিশ মাসুদকে গ্রেফতার করলেও অন্য দুই যুবক এখনো পলাতক৷ মাসুদ সিংহরাগী গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে৷

মানবাধিকারকর্মী খুশি কবীর বলেন, ক্ষমতাশালীরা জড়িত থাকায় তাদের বিচার হয় না।

মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯ সালে এক হাজার ৪১৩ জন নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন৷ ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিলো ৭৩২ জন৷ অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় গত বছর ধর্ষণের ঘটনা বেড়েছে দ্বিগুণ যা ভয়াবহ বলে উল্লেখ করেছে সংস্থাটি৷ ২০১৭ সালে ধর্ষণের শিকার হন ৮১৮ জন নারী৷ ২০১৯ সালে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭৬ জনকে৷ আর আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছেন ১০ জন নারী৷

এইসব ঘটনার জন্য দীর্ঘদিন ধরেই বিচারহীনতার সংস্কৃতিকে দায়ী করে আসছেন মানবাধিকার কর্মীরা৷ নারী নেত্রী খুশি কবীর ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এইসব ধর্ষণ বা গণধর্ষণের ঘটনাগুলোর সঙ্গে ক্ষমতাশালীরা জড়িত থাকায় তাদের বিচার হয় না৷ আবার অনেক সময় পুলিশ এইসব ক্ষমতাশালীদের গ্রেপ্তারও করে না৷ আমি তাদের কথা বলছি, যারা রাজনৈতিকভাবে বা আর্থিকভাবে ক্ষমতাশালী৷ কেউ কেউ গ্রেপ্তার হলেও তারা আবার জামিনে ছাড়া পেয়ে যাচ্ছে৷ ফলে এই অপরাধীদের বিরুদ্ধে সমাজে খুব ভালো বার্তা যাচ্ছে না৷ এই কারণে এদের থামানোও যাচ্ছে না৷ এই অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা গেলে অবশ্যই অপরাধ কমে যাবে৷’’ সূত্র: ডয়েচে ভেলে।

এস মায়াজ আহমদ তালহা