পাকিস্তানে যাত্রীবাহী বাসে আগুন, নিহত ১৩

5

আন্তর্জাতিক ডেস্ক ::
পাকিস্তানে একটি যাত্রীবাহী বাসে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাসটি পাকিস্তানের হায়দরাবাদ থেকে করাচি যাচ্ছিল। গন্তব্যে পৌঁছনোর আগেই বাসটিতে আগুন ধরে যায় এবং এটি উল্টে যায়। শনিবার ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে স্থানীয় কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন। খবর হিন্দুস্তান টা

ইমস।

পুলিশ ও উদ্ধারকারী কর্মকর্তারা বলেছেন, অতিরিক্ত গতির কারণেই দুর্ঘটনার কবলে পড়ে যাত্রীবাহী বাসটি। পরে এতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশ জানিয়েছে, ফাঁকা রাস্তায় খুব দ্রুত বেগে ছুটছিল বাসটি। বেশি গতি থাকার কারণে চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন এবং বাসটি উল্টে যায়। তার আগেই বিস্ফোরণে বাসটিতে আগুন ধরে গিয়েছিল। বাস উল্টে যাওয়ায় কারণে যাত্রীরা সবাই বেরিয়ে আসতে পারেননি।

ঘটনাস্থলে আগুনে পুড়ে এবং ধোঁয়ায় অসুস্থ হয়ে কমপক্ষে ১৩ জন মারা গেছেন। পুলিশ জানিয়েছে, হায়দরাবাদ থেকে করাচি যাওয়ার সময় নুরিয়াবাদের কাছে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে যাত্রীবাহী বাসটি। দুর্ঘটনার সময় বাসটিতে ২২ জন যাত্রী ছিলেন। এর মধ্যে ১৩ জনই মারা গিয়েছেন। অতিরিক্ত আইজি আফতাব পাঠান জানান, বাস দুর্ঘটনার পর স্থানীয়দের তত্পরতায় কয়েক জনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

তবে যে ৯ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে তার মধ্যে পাঁচজনের অবস্থাই গুরুতর। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দমকলের গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছনোর আগেই পুরো বাসে আগুনের তীব্র শিখা ছড়িয়ে পড়ে।

হায়দরাবাদ থেকে ৬০ কিলোমিটার যাওয়ার পরেই বাসটি দুর্ঘটনার সম্মুখীন হয়। শনিবার গভীর রাত পর্যন্ত বাসটি থেকে সব মৃতদেহ বের করে আনা সম্ভব হয়নি। বাসটি সম্পূর্ণ পুড়ে গেছে। পুলিশ জানিয়েছে, মরদেহগুলো এখনও শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। এতটাই বীভত্স অবস্থা যে তাদের চেনাই যাচ্ছে না।

চলতি বছরের শুরুতেই নিউ করাচিতে একটি চলন্ত ভ্যানে অগ্নিকাণ্ডে একই পরিবারের ৬ জন পুড়ে মারা যান। এর মধ্যে চারজনই ছিল শিশু। অগ্নিদগ্ধ হন ওই ভ্যানের যাত্রী আরও পাঁচজন।

গত বছর ডিসেম্বরে পাকিস্তানের বেলুচিস্তানে যাত্রীবাহী বাসে এমনই একটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন মারা যান। একটি ভ্যানের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষের পরেই বাসটিতে আগুন ধরে গিয়েছিল। দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ায় যাত্রীরা সবাই নেমে আসার সুযোগ পাননি।

 

এস মায়াজ আহমদ তালহা