নতুন বেশ ধারণ করে শেষ রক্ষা হলো না তারেকের

64


স্টাফ রিপোর্টার :: চুল ও লম্বা দাড়ি কেটেও শেষ রক্ষা হলো না ধর্ষক তারেকের। নিজেকে অচেনা রূপে আবিস্কার করেও তাকে ধরা পড়তেই হলো র‍্যাবের হাতে। সি‌লে‌টের এম‌সি ক‌লে‌জ ছাত্রাবাসে গৃহবধূ ধর্ষ‌ণের ঘটনায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এজাহারভুক্ত আসামি তারেকুজ্জমান তারেককে সুনামগঞ্জের দিরাই পৌর এলাকা থেকে আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় র‍্যাব-৯ এর একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করে।

র‌্যাব-৯ সিপিসি-৩ এর লেফটেনেন্ট কমান্ডার ফয়সল গণমাধ্যম কর্মীদের জানান, গণধর্ষণের ঘটনার পর সিলেট থেকে পালিয়ে যায় তারেক। পরে মাথার লম্বা চুল ও দাড়ি কেটে ফেলে সে, যাতে করে তাকে কেউ চিনতে না পারে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় র‌্যাব সিপিসি-৩ এর একটি দল তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আপাতত তাকে র‌্যাব হেফাজতে রাখা হয়েছে। পরে তাকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে তিনি জানান।

এদিকে মামলার এজাহারভুক্ত ৬ আসামিই এখন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে। এছাড়া মামলায় এ পর্যন্ত ৮ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন। এজাহারভুক্ত ৬ জন ছাড়া আটক বাকি দুজনকেও এই মামলায় আসামি দেখানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার আসামিরা হলো- সাইফুর রহমান, মাহমুদুর রহমান রনি, অর্জুন লস্কর, রবিউল হাসান, মাহফুজুর রহমান মাসুম, রাজন, আইনুদ্দিন ও সর্বশেষ তারেক। এর মধ্যে সাইফুর রহমান, মাহমুদুর রহমান রনি, অর্জুন লস্কর, রবিউল হাসান, রাজন ও আইনুদ্দিনকে ৫ দিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে আলোচিত গৃহবধূ ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার মাহবুবুর রহমান রনি, রাজন ও আইনুদ্দিনকে ৫ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার বেলা ১২ টায় মাহমুদুর রহমান রনি, রাজন ও আইনুদ্দিনকে সিলেট মহানগর হাকিম সাইফুর রহমান এর আদালতে তোলার পর পুলিশ তাদের ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগের দিন একই আদালত সাইফুর রহমান, অর্জুন লস্কর ও রবিউল হাসানকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠান। তবে সোমবার রাতে পুলিশ ও ডিবির যৌথ অভিযানে জৈন্তাপুর থেকে আটক মাহফুজুর রহমান মাসুমকে এখনও আদালতে হাজির করা হয়নি। আগামীকাল তাকে আদালতে তোলার কথা রয়েছে।

 

সবুজ সিলেট/ ২৯ সেপ্টেম্বর/ এহিয়া আহমদ