নবীগঞ্জে চেয়ারম্যান-মেম্বারসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে গণর্ধষণের অভিযোগ: আদালতে মামলা দায়ের

71

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :: নবীগঞ্জ উপজেলার পল্লীতে এবার স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে গণর্ধষণের অভিযোগ ওঠেছে। হবিগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানাগেছে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তিনদিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে নবীগঞ্জ থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।
গতকাল রোববার (২৫ অক্টোবর) বিকালে নবীগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করা হলে ওসি আজিজুর রহমান জানান, মামলাটি রাতেই এফআইআর গণ্যে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানাযায়, নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের পারকুল গ্রামের মহিবুর রহমানের স্ত্রী মৌসুমী বেগম মামলা দায়ের করেন।মামলার বিবরণে জানা যায়, তিনি গত ৮ অক্টোবর বিকালে রিকশাযোগে শেরপুর বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে পারকুল গ্রামের মেম্বার দুলাল মিয়ার বাড়ির সামনে আসা মাত্র আসামীগন তাকে জোরপূর্বক একটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে অপহরণ করে নিয়ে যায়। একটি অজ্ঞাতস্থানে ৩ দিন আটকে রেখে তাকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এর ৪ দিন পর আসামীগণ আউশকান্দি বাজারে একটি রেস্টুরেন্টের সামনে সিএনজি অটোরিকশা থেকে নামিয়ে দিয়ে চলে যায়। খবর পেয়ে মহিলার স্বামী মুহিবুর রহমান এসে তাকে উদ্ধার করে নবীগঞ্জ সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করেন।
ধর্ষণ মামলার আসামীরা হচ্ছেন- উপজেলার আউশকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান হারুন(৫০) ও তার পরিষদের সদস্য দুলাল আহমদ (৪০) সেবুল মিয়া(২৮), সহিদুল মিয়া(২৫), জিবু মিয়া(২৭) সহ আরো অজ্ঞাতনামা ৩ জন।
নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক হবিগঞ্জ জেলা দায়রা ও জেলা জজ মোহাম্মদ হালিম উল্লাহ চৌধুরী বলেন, নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জকে মামলার তদন্তের ভার দেওয়া হয়েছে। তিনি আগামী তিন কার্য দিবসের মধ্যে মামলা রজু করে মামলার প্রতিবেদন ট্রাইব্যুনালে প্রেরণ করবেন।
এদিকে মহিলার স্বামী মুহিবুর রহমান অভিযোগ করেন, মামলার সাক্ষীগণদেরকে অভিযুক্ত চেয়ারম্যান ও মেম্বারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন রকমের চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। আদালত থেকে মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য নানাভাবে হয়রানি করছেন বলে জানান মুহিবুর রহমান।

ইউপি চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান হারুন বলেন, আমি শোনেছি একটি নারী নির্যাতন মামলা হয়েছে । এ ব্যাপারে বিস্তারিত আমি কিছুই জানিনা।
ইউপি সদস্য দুলাল আহমদ জানান, এই রকম জগণ্য ও ঘৃণিত কাজের সাথে তার কোনো সম্পর্ক নেই, তাকে মিথ্যা মামলা জড়ানো হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।
নবীগঞ্জ থানার ওসি আজিজুর রহমান জানান, মামলাটি আদালতের আদেশে প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। খুব শীগ্রই তদন্ত করে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হবে ।