তিন মাস পর আবারো সুনামগঞ্জে ভোট

12

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি ::
তিন মাস ছয় দিনের মাথায় আবারো পৌর মেয়র নির্বাচিত করার জন্য ভোট দেবেন সুনামগঞ্জের প্রবাসী-অধ্যুষিত পৌরসভা জগন্নাথপুরের ভোটাররা। এই পৌরসভার অর্ধেকেরও বেশি ভোটার যুক্তরাজ্য প্রবাসী। মেয়র পদে আগ্রহী প্রার্থীদের মধ্যেও যুক্তরাজ্য প্রবাসীই বেশি।

বর্তমান মেয়র যুক্তরাজ্য প্রবাসী মিজানুর রশিদ ভুঁইয়া গত ১০ অক্টোবর উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জয়ী হয়েছিলেন। ১ নভেম্বর শপথ নিয়ে নভেম্বরের দুই তারিখে তিনি দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

তবে গেল নির্বাচনের আমেজ কাটতে না কাটতেই আবার এই পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করায় জমে ওঠেছে নির্বাচনী আলপচারিতা। চায়ের কাপে ঝড় তুলেছেন কর্মী-সমর্থকরা। আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীরা রাজধানীমুখী হয়েছেন অনেকেই।

শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন-যুক্তরাজ্য প্রবাসী বর্তমান মেয়র মিজানুর রশীদ ভূঁইয়া, পৌরসভার গেল উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী প্রয়াত মেয়র আব্দুল মনাফের পুত্র যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবুল হোসেন ওরফে সেলিম, জেলা পরিষদ সদস্য মাহতাবুল হাসান সমুজ, জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক যুক্তরাজ্য প্রবাসী লুৎফুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শামছুল ইসলাম রাজন ও যুক্তরাজ্যের মিডল্যান্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আকমল খাঁন।

বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে রয়েছেন-যুক্তরাজ্য প্রবাসী রাজু আহমেদ, উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আক্তার হোসেন ও গেল উপ-নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী আবিবুল বারী আয়হান।

সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম. এনামুল কবির ইমন জানান, কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করবেন। ২০ ডিসেম্বর মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন। এজন্য ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে হয়তোবা আগ্রহী প্রার্থীদের তালিকা কেন্দ্রে জমা দিতে হবে।

জেলা বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন, বিএনপির পৌর মেয়র প্রার্থী মনোনয়ন প্রক্রিয়া শনিবার (৫ ডিসেম্বর) থেকে শুরু হবে। আগ্রহী প্রার্থীদের ফরম সংগ্রহের বিষয়টি শনিবার কেন্দ্রীয় বিএনপির পক্ষ থেকে গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানানো হবে। পরে জেলা নেতাদের কাছ থেকে ফরম সংগ্রহ করবেন আগ্রহীরা। কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড মনোনয়ন জমা দেবার শেষ দিনের আগেই দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করবেন।

তফসিল অনুযায়ী এই পৌরসভার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ২০ ডিসেম্বর। ২২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই। প্রার্থিতা প্রত্যাহার ২৯ ডিসেম্বর। ভোট হবে ১৬ জানুয়ারি।

নির্বাচনে ২৮ হাজার ৮৭৯ ভোটার ভোট দেবেন।

গত ১১ জানুয়ারি এই পৌরসভার মেয়র আবদুল মনাফ মৃত্যুবরণ করলে পৌরসভার উপ-নির্বাচন ঘোষণা হয়। তফসিল অনুযায়ী ২৭ ফেব্রুয়ারি মনোয়নপত্র দাখিল করে ভোটযুদ্ধে নামেন চার প্রার্থী।

এই চার প্রার্থীর তিনজনই যুক্তরাজ্য থেকে এসে মনোয়ন জমা দিয়েছিলেন। ২৯ মার্চ ভোটগ্রহণের দিন সামনে রেখে প্রচারণা শুরু করেছিলেন প্রার্থীরা। প্রচারণার শেষ পর্যায়ে করোনা পরিস্থিতির কারণে ২১ মার্চ ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়ে যায়। প্রবাসী প্রার্থীদের কেউ কেউ পাড়ি জমান যুক্তরাজ্যে। প্রায় সাড়ে ৬ মাস পর গত ১০ অক্টোবর পৌরসভার ভোটগ্রহণ হয়। বিজয়ী হন আওয়ামী লীগের মনোনীত মেয়র প্রার্থী মিজানুর রশিদ ভুঁইয়া।

 

  •