ছাতক পৌর নির্বাচনে ৯ ওয়ার্ডে ২৮ কাউন্সিলর প্রার্থী হ্যাট্রিক বিজয়ের দ্বারপ্রান্তে ৪ জন

43

বিজয় রায়, ছাতক ::
আসন্ন ২০২১ সালের ১৬ জানুয়ারী ছাতক পৌরসভা নির্বাচনকে ঘিরে পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে সম্ভাব্য ২৮ জন প্রার্থী জোর প্রচারনায় নেমেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে নিয়মিত প্রচার-প্রচারনা ছাড়াও ইতিমধ্যেই মতবিনিময় সভা, উঠান বৈঠক ও গণসংযোগ করে ভোটারদের মন কাড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।

ভোটের পাল্লা ভারী করতে ক্রমেই গণসংযোগে ব্যস্থ হয়ে উঠছেন এসব প্রার্থীরা। বর্তমান কাউন্সিলরগণ ছাড়াও প্রতিটি ওয়ার্ডে একাধিক নতুন মুখ এ নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। নতুন, পুরাতন ও বর্তমান কাউন্সিলরদের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় একটি জমজমাট ও উৎসবমুখর নির্বাচনের প্রতিক্ষা করছেন পৌরসভার সর্বস্থরের মানুষ। ৭ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর তাপস চৌধুরী পৌরসভার জন্মলগ্ন থেকে টানা ৪ বার এ ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন।

তিনি আবারো এ ওয়ার্ডে প্রার্থী হচ্ছেন বলে জানা গেছে। ৫ম বিজয়ের প্রত্যাশা নিয়ে তিনি ইতিমধ্যেই নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। ৫ম বিজয়ের মধ্যদিয়ে এখন বিরল রেকর্ড গড়ার স্বপ্নে বিভোর তাপস চৌধুরী। পৌরসভার বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন যারা হ্যাট্রিক বিজয়ের প্রায় দ্বার প্রান্তে অবস্থান করছেন। ১ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর আখলাকুল আম্বিয়া সোহাগ, ৩ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর লিয়াকত আলী, ৬ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর জসিম উদ্দিন সুমেন ও ৯ নং ওয়ার্ডের বতর্মান কাউন্সিলর দিলোয়ার হোসেন হ্যাট্রিক বিজয়ের রেকর্ড গড়তে এবারও প্রার্থী হচ্ছেন।

এ প্রত্যাশায় ইতিমধ্যেই তারা ভোটারদের মন জয় করে নিজেদের পাল্লা ভারী করার চেষ্টায় রয়েছেন। ১৬ জানুয়ারী পৌরসভা নির্বাচনে ১ নং ওয়ার্ডে সম্ভাব্য প্রার্থী বর্তমান কাউন্সিলর আখলাকুল আম্বিয়া সোহাগের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আরো ২জন।

এরা হলেন বিগত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী শাহ আরজ মিয়া ও নুতন মুখ নাজিমুল হক। ২নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর সুদীপ দে, সাবেক কাউন্সিলর আফরোজ মিয়া এবং নতুন মূখ বেলায়েত হোসেন প্রার্থী হচ্ছেন বলে শোনা যা্েছ। ৩নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সলর লিয়াকত আলীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে প্রার্থী হচ্ছেন নতুন মুখসহ আরো ৩ প্রার্থী। সাবেক পৌর কমিশনার ফয়জুর রহমান, নতুন মুখ কাউসার মিয়া চিস্তি ও আকিকুর রহমান রাসেল কাউন্সিলর পদে প্রার্থী হচ্ছেন এ ওয়ার্ডে। বর্তমান কাউন্সিলর ধন মিয়া ও নতুন মুখ রাশিদ আলী প্রার্থী হচ্ছেন ৪ নং ওয়ার্ডে।

এ ওয়ার্ডে অত্যন্ত জনপ্রিয় মুখ ধন মিয়ার অবস্থান খুবই মজবুত বলে জানা গেছে। ব্যতিক্রম না হলে আবারো তিনিই বিজয়ী হবেন বলে লোকমুখে শোনা যাচ্ছে। পৌরসভার সবচেয়ে ছোট ৫ নং ওয়ার্ডে সম্ভাব্য প্রার্থী ৩ জন। বর্তমান কাউন্সিলর আছাব মিয়ার সাথে লড়বেন সাবেক কাউন্সিলর ইরাজ মিয়া ও নতুন মুখ খায়ের উদ্দিন। পৌরসভার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন ও রাজধানী ওয়ার্ড নামে খ্যাত ৬ ও ৭ নং ওয়ার্ডের নির্বাচনে পৌরবাসী নজর সবসময়ই অন্যরকম। এবাও এর ব্যতিক্রম নয়।

পৌরসভার অন্য যেকোনা ওয়ার্ডের চেয়ে ৬ ও ৭ নং ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যাও অনেক থেকে বেশী। ৬ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর জসিম উদ্দিন সুমনের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে বিগত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী দেলোয়ার মাহমুদ জুয়েল বক্স ও নতুন মুখ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান মাহবুব মিয়া প্রার্থী হচ্ছেন। একটি জমজমাট নির্বাচনী লড়াইয়ের প্রত্যাশা করছেন এ ওয়ার্ডবাসী। ৭ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর তাপস চৌধুরীর সাথে ভোট যুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে প্রার্থী হচ্ছেন আরো ৩ জন।

বিগত নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিকারী লায়েক মিয়া, নতুন মুখ হিমাংশ দাস উত্তম ও শিবলু আহমদ এ ওয়ার্ডে প্রার্থী হচ্ছেন। এখানেও একটি জমজমাট ভোট যুদ্ধ দেখার প্রত্যাশা করছেন ওয়ার্ডবাসী।

৮নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর নওশাদ মিয়া ছাড়াও প্রার্থী হচ্ছেন সাবেক কাউন্সিলর মাসুক মিয়া, নতুন মুখ শফিক আলী ও কনাই মিয়া। ৯নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিল দিলোয়ার হোসেনকে নির্বাচনী ভোটে মোকাবেলা করতে প্রার্থী হচ্ছেন নতুন মুখ ব্যবসায়ী হাজী ছালেক মিয়া। সব মিলিয়ে কাউন্সিলর পদে বর্তমানদের সাথে নতুন-পুরাতনের লড়াই হবে উৎসবমুখর-এ প্রত্যাশাই পৌরবাসীর।

সবুজ সিলেট/ এস মায়াজ আহমদ তালহা