ধর্মের নামে ষড়যন্ত্রকারীদের রুখে দাঁড়াতে হবে : পরিবেশ মন্ত্রী

5

বড়লেখা প্রতিনিধি

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, ‘১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধীরা নতুন করে আরেকটি জিনিস শুরু করেছে। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নাকি মূর্তি হয়ে গেছে। এরাই এক সময় এমন কথা বলতো, টাকাতে বঙ্গবন্ধুর ছবি দেওয়া হয়েছে, এটা থাকলে নামাজ হবে না। তবে পাকিস্তান আমলে কায়দে আজমের ছবি সম্বলিত টাকায় তারা ঠিকই সালাম জানাত। এরা একই মুখে দু’রকম কথা বলে। এরাই হচ্ছে রাজাকার-আলবদর। এরা দেশ জাতির দুশমন। এদেরকে চিহ্নিত করতে হবে।’

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) বেলা ১২টার দিকে মৌলভীবাজারের বড়লেখায় বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। বড়লেখায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে উপজেলা প্রশাসন এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

মন্ত্রী বলেন, ‘ইসলামী অনেক রাষ্ট্র আছে। সেখানে ভাস্কর্য আছে। আমাদের দেশে জিয়াউর রহমানেরও ভাস্কর্য আছে। কিন্তু এটা তাদের কাছে ভাস্কর্য নয়। এটায় ইসলাম যায় না, আর বঙ্গবন্ধুর নাম শুনলে ধর্ম চলে যায়, ইসলাম চলে যায়। এদেরকে সাবধান করে দিতে চাই, হুশিয়ার করে দিতে চাই। দেশের বিরুদ্ধে বার বার ধর্মের কথা বলে অনেক ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। যারা ১৯৭১ সালে পরাজিত হয়েছিল, তারা ধর্মকে পুঁজি করে মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। আবার তারা ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। ষড়যন্ত্রকে রুখে দাঁড়াতে হবে। সকলকে সজাগ থাকতে হবে। কোনো অবস্থায় স্বাধীনতা নিয়ে যেন আর কেউ ষড়যন্ত্র করতে না পারে।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শামীম আল ইমরান। মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা হাওলাদার আজিজুল ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি লুৎফুর রহমান চুন্নু ও উপজেলা স্কাউটসের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বড়লেখা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, বড়লেখা জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম হরিদাস কুমার, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর, বড়লেখা পৌরসভার মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী, বড়লেখা উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ তাজ উদ্দিন, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান বিবেকানন্দ দাস নান্টু, বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতিফ, বড়লেখা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এপিপি গোপাল দত্ত, বড়লেখা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বড়লেখার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুসরাত লায়লা নীরা।

এর আগে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে মন্ত্রী জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। বড়লেখা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রত্যুষে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে মহান বিজয় দিবসের সূচনা হয়। এরপর শহীদদের স্মরণে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, বড়লেখা উপজেলা প্রশাসন, বাংলাদেশ পুলিশ বড়লেখা থানা, জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বড়লেখা পৌরসভা, বড়লেখা প্রেসক্লাব, পল্লীবিদ্যুৎ আঞ্চলিক কার্যালয়সহ বিভিন্ন সংগঠন, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো হয়।

শ্রদ্ধাঞ্জলি শেষে বড়লেখা প্রেসক্লাবের জ্যেষ্ঠ সদস্য ইকবাল হোসেন স্বপনের সঞ্চালনায় পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. শামীম আল ইমরান বক্তব্য রাখেন।

সবুজ সিলেট/ডিসেম্বর ১৭/ হাসান

  •