অবশেষে আইজীবী পেলেন বহিস্কৃত এসআই আকবর

24

স্টাফ রিপোর্টার
অবশেষে নিজের পক্ষে আইনজীবী পেলেন পুলিশের বহিস্কৃত এসআই আকবর হোসেন ভূইয়া। সিলেটের পুলিশ ফাঁড়িতে নির্যাতনে রায়হান আহমদ হত্যা মামলার প্রধান এই অভিযুক্তের পক্ষে লড়তে প্রথমে সিলেটের কোনো আইনজীবী রাজী না হলেও শেষ পর্যন্ত আইজীবী খুঁজে পেয়েছেন তিনি।

আকবরের পক্ষে আদালতে আইনী লড়াই করবেন সিলেট জেলা আইজীবী সমিতির সদস্য এডভোকেট মো. মিসবাউর রহমান আলম।

যদিও এরআগে সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিলো, আকপরের পক্ষে সিলেটের কোনো আইনজীবী আদালতে দাঁড়াবেন না। রায়হানের বাড়িতে গিয়েও এমনটি জানিয়েছিলেন সমিতির নেতারা।

আকবরের পক্ষে আইনী লড়াইয়ে সম্মত হওয়া প্রসঙ্গে এডভোকেট মো. মিসবাউর রহমান আলম বলেন, আসামিপক্ষে আইনজীবী না থাকলে তো বিচার প্রকিয়াই আটকে যাবে। আকবর অভিযুক্ত হলেও সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে সে অপরাধী সাব্যস্থ হবে। এর আগে আইনি সহায়তা পাওয়া তার সাংবিধানিক অধিকার।

গত ১০ ডিসেম্বর আকবরের পক্ষে তিনি ওকালতনামা জমা দিয়েছেন বলে জানান মিসবাউর।

গত ১১ অক্টোবর সকালে মারা যান নগরীর আখালিয়া বাসিন্দা রায়হান আহমদ (৩৪)। বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে এনে নির্যাতন চালিয়ে তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। ওই রাতেই হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে মামলা করেন রায়হানের স্ত্রী তামান্না আক্তার।

মামলার পর মহানগর পুলিশের একটি অনুসন্ধান কমিটি তদন্ত করে নির্যাতনের সত্যতা পায়। এই ফাঁড়ির ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা উপপরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূঁঞাসহ চারজনকে ১২ অক্টোবর সাময়িক বরখাস্ত ও তিনজনকে প্রত্যাহার করা হয়। ১৩ অক্টোবর আকবর পুলিশি হেফাজত থেকে পালিয়ে যান বন্দরবাজার থানার ইনচার্জের দায়িত্বে থাকা আকবর হোসেন ভূইয়া।

গত ৯ নভেম্বর সিলেটের কানাইঘাট সীমান্ত থেকে আকবর হোসেন ভূইয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়। ভারতে পালানোর সময় তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশ দাবি করে।

সবুজ সিলেট/ডিসেম্বর ১৭/ হাসান