মানববন্ধন করে সরকার হটনো যাবে না: গয়েশ্বর

1

সবুজ সিলেট ডেস্ক
একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠানে দাঁড়িয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, ‘মানববন্ধন বা প্রতিবাদ করে মুক্তির পথ হবে না। আমাদের লড়াই করতে হবে। আজ এই মাস বিজয়ের মাসের শেষ দিন। যে বিজয় নিয়ে গর্ব করি সেই বিজয় কিন্তু লড়াই ছাড়া আসেনি, সংগ্রাম ছাড়া আসেনি ও রক্ত ছাড়া হয়নি। সে কারণেই আমাদের জীবন যুদ্ধে যেমন করোনাকে উপেক্ষা করে ছোটাছুটি করি, তেমনি স্বাধীনতা রক্ষার দায়িত্ববোধ থেকে করোনার মতো শেখ হাসিনাকে উপেক্ষা করে ও প্রশাসনের রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে মাঠে ময়দানে ছোটাছুটি করতে হবে। তাছাড়া কিন্তু আমাদের পরিত্রাণ পাওয়ার অন্য কোনও পথ নেই।’

বৃহস্পতিবার (৩১ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত মানবন্ধনে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এসব কথা বলেন।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আজ ২০২০ বছরের শেষ দিন। আজও আমাদের কর্মসূচি করতে হচ্ছে। আগামীকাল পহেলা জানুয়ারি ২০২১ সাল। আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত যদি প্রতিদিন প্রতিবাদ করি তবুও আজ যা চলছে তা কমবে না। উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাবে। এত ঘটনা ঘটছে, একটি সংগঠন বা চারটি সংগঠনও যদি নানা স্থানে প্রতিবাদ করে তাহলেও সবার কথা বলা যায় না।’

মহানগর দক্ষিণ সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল বলেন, ‘এই স্বৈরাচারী সরকারের কাছে নারী হত্যার বিচার চেয়ে লাভ নেই, নারী ধর্ষণের বিচার চেয়ে লাভ নেই। শিশু হত্যার বিচার চেয়ে লাভ নেই। কোনও হত্যার বিচার চেয়ে লাভ নেই। কোনও অন্যায়ের বিচার চেয়ে লাভ নেই। কারণ সব অন্যায়কারীর আশ্রয়স্থল হচ্ছে তেজগাঁওয়ের প্রধানমন্ত্রীর সচিবালয়।’

‘টাঙ্গাইলের গোপালপুর পৌর মহিলা দলের সভানেত্রী হাবিজা বেগমের ওপর আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হামলা ও তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা এবং দেশব্যাপী নারী-শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে’ এই শিরোনামে মানবনবন্ধন করে নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম।

সংগঠনের সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরীর পরিচালনায় আরো বক্তব্য দেন বিএনপির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক আজিজুল বারী হেলাল, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক সরফত আলী সপু প্রমুখ।