দুইটি ভ্যাকসিনের অনুমোদন দিলো ভারত

10

আর্ন্তজাতিক ডেস্ক::
অবশেষে জরুরি ব্যবহারের জন্য করোনাভাইরাসের দুইটি ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত অনুমোদন দিলো ভারত। দেশটির ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল রোববার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তারা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রেজেনেকার তৈরি ভ্যাকসিনের পাশাপাশি ভারতের স্থানীয় কোম্পানির তৈরি অপর একটি ভ্যাকসিন অনুমোদন দিয়েছে।

শনিবার ভারতের বিজ্ঞান গবেষণা সংস্থা এবং ভারত বায়োটেকের যৌথ উদ্যোগে উদ্ভাবিত করোনাভাইরাসের টিকা কোভ্যাকসিন অনুমোদনের সুপারিশ করে দেশটির ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বিশেষজ্ঞ কমিটি। এর আগে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত টিকার অনুমোদনের সুপারিশ করা হয়। ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআই শনিবার জানায়, ওষুধ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ চূড়ান্ত অনুমোদন দিলে এসব টিকা প্রয়োগ শুরু হবে।

রবিবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় একটি সংবাদ সম্মেলন আয়োজনের মধ্য দিয়ে সেই অনুমোদনের কাজ সম্পন্ন হলো।

করোনাভাইরাসের টিকা গণহারে প্রদান শুরুর আগে এই কর্মসূচির মহড়া চালিয়েছে ভারত। শনিবারের এই মহড়ায় ২৫ স্বাস্থ্যকর্মী ডামি টিকা গ্রহণ করেন। গণহারে টিকাদানের সময় যেগুলোকে কেন্দ্র হিসেবে সেসব স্থানে এসব কর্মী টিকা গ্রহণ করেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন বলেছেন, কোনও ধরনের বিঘ্ন ছাড়াই আসন্ন টিকাদান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার আত্মবিশ্বাস তৈরিতে ভূমিকা রাখবে এই মহড়া।

কবে থেকে ভ্যাকসিন দেওয়া শুরু হবে তা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়ে দেবে।

অক্সফোর্ডের টিকাটি ভারতে উৎপাদন করছে সিরাম ইন্সটিটিউট। এটি ছাড়াও ভারতের নিজস্ব টিকা কোভ্যাকসিন এবং ফাইজারের টিকাও জরুরি অনুমোদনের জন্য আবেদন করা হয়েছিল।

ভারতীয় গবেষকেরা বলছেন, কোভ্যাকসিন টিকার কার্যকারিতার তথ্য সামগ্রিকভাবে ভালো ফলাফল দিয়েছে। টিকাটির তৃতীয় ধাপে ২৫ হাজার আটশ’ অংশগ্রহণকারীর ওপর পরীক্ষা চালানো হচ্ছে। গত নভেম্বরে শুরু হওয়া এই পরীক্ষায় ইতোমধ্যে ২২ হাজার অংশগ্রহণকারীর ওপর টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে।

প্রথম দুই ধাপের পরীক্ষায় ভালো কার্যকারিতা দেখা গেছে বলে জানা গেছে। আগামী মার্চ নাগাদ অন্তর্বর্তী চূড়ান্ত ফলাফল পাওয়ার আশা করছেন গবেষকেরা। গবেষকেরা জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে কোভ্যাকসিনের এক কোটি ডোজ উৎপাদন করে রাখা আছে।

সবুজ সিলেট/ ০৩ জানুয়ারি/শামছুন নাহার রিমু