দিরাইয়ে প্রধানমন্ত্রীর ঘর পেয়ে আবেগ আপ্লুত দিনমজুর ধীরেন্দ্র

12

দিরাই প্রতিনিধিঃ

দীর্ঘ বিশ বছর পরের জায়গায় পরিবার নিয়ে বসবাসকারী ধীরেন্দ্র দাস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ প্রকল্পের ঘর পেয়ে খুশিতে আত্মহারা। স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে ধীরেন্দ্র থাকেন চরনারচর ইউনিয়নের শ্যামারচর কান্দাহাটি গ্রামের অন্যের জায়গায়। জরাজীর্ণ ভাঙ্গা ঘরে সকলকে নিয়ে যবুথবু হয়ে কোন রকম রাত্রিযাপন করতেন তিনি। অন্যের জায়গায় জরাজীর্ণ ঘরটিতে শীত কিংবা রোদ-বৃষ্টি ঝড়ে থাকতে হয়েছে এভাবেই। মাঝে মাঝে বৃষ্টির রাতে আশপাশের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিতেন তারা। নিজে পরের জমিতে শ্রম বিক্রি করে নিজের সংসার চালাতেই হিমশিম খান। কোনদিন কাজ থাকে, কোনদিন থাকে না। পেট চালানোই দায় যেখানে, সেখানে নতুন ঘর করা আকাশকুসুম কল্পনা। ভাবতেন আমার যদি একটা ঘর থাকতো তাহলে এভাবে কষ্ট করার লাগতো না। ভ‚মিহীন গৃহহীন ধীরেন্দ্রের স্বপ্ন বাস্তবে রূপ দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। স্বপ্নের চেয়ে ভালো পাকা ঘর পেয়ে সে আবেগে আপ্লুত। ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত ঘরসহ ২ শতাংশ সরকারি খাস জায়গা বিনাম‚ল্যে পেয়ে আনন্দের চাপ স্পষ্ট হয়ে উঠে তার চোখেমুখে। আশীর্বাদ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য। ধীরেন্দ্র দাস বলেন, শেখ হাসিনা আমার মতো আরও যারা অসহায় আছে তাদেরকে ঘর দেওয়ার সামর্থ দাও। তার সাথে উপরওয়ালা যেন ইউএনও, এসিল্যান্ড সহ অন্যান্যদেরও সুখে শান্তিতে রাখেন। বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক উপহার হিসেবে গৃহহীন ও ভ‚মিহীনদের দুর্যোগ সহনীয় বাসগৃহ নির্মাণ ও গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়নে কর্মস‚চির প্রকল্পের আওতায় দিরাইয়ে ৭৪৬ জন অসহায় দরিদ্র্য গৃহহীন ভ‚মিহীন পরিবারকে ঘর করে দিবে উপজেলা প্রশাসন। গতকাল শনিবার সকাল ১০ টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দিরাই উপজেলার ৭৪৬ টি পরিবারের জন্য নির্মাণাধীন ঘরের মধ্যে কাজ সম্পন্ন হওয়া ৪০ টি ঘরের চাবি প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলম চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাহমুদুর রহমান মামুন, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) তাপস শীল সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান মামুন বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যাদের জায়গা নেই এবং ঘরও নেই এমন ৭৪৬ টি পরিবার কে ২ শতাংশ জায়গাসহ ১ লাখ ৭১ হাজার টাকা ব্যয়ে পাকা টিনসেড ঘর উপহার দিয়েছেন। শনিবার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়া ৪০ টি ঘর উপকারভোগীদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

  •