চুনারুঘাটে আওয়ামীলীগের বর্ধিত সভা অনুষ্টিত

12

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি :::
ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগকে কেউ হারাতে পারেনা, পারবেওনা, অতীতের সকল দু:খ কষ্ট মান অভিমান ভুলে গিয়ে চুনারুঘাট উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের সকল নেতাকর্মীকে নৌকা বিজয়ী করতে আহবান জানিয়েছেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী।

তিনি বলেন, আওয়ামীলীগে বেইমান মোনাফেক, মীরজাফর ও খন্দকার মোস্তাকদের স্থান নেই, যারা মুখে এক আর অন্তরে আরেক বাসনা রাখেন, তাদের আওয়ামীলীগে থাকার অধিকার নেই। আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী পৌরসভা নির্বাচনে যদি নেতাকর্মী মোনাফেকী করেন, তাদের কোন ভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না। তিনি ২৪ জানুয়ারী রবিবার রাতে চুনারুঘাট উপজেলা সভাকক্ষে পৌর ও উপজেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত নৌকা মার্কার সমর্থনে বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

এডভোকেট আলমগীর চৌধূরী বলেন, হবিগঞ্জ আওয়ামীলীগের ঘাটি। নৌকার ঘাটি, সেখানে আমরা বিগত দিনে মাধবপুর, শায়েস্তাগঞ্জ ও নবীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা পরাজিত হয়েছে। এতে আমাদের সকলের মাথা নিচু হয়েছে। আমরা কি জবাব দেব আমাদের নেত্রীর কাছে। কি জবাব দেবেন আমাদেরে প্রতিমন্ত্রী মহোদয়, কি জবাব দেবেন জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, কি জবাব দিব আমরা। বিগত দিনের শিক্ষা নিয়ে তিনি আগামী নির্বাচনে নৌকার পক্ষে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান। কোন ভাবেই নৌকার সাথে কেউ বেইমানী করলে তাদের বিরুদ্ধে কটোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুশিয়ারী দিয়ে তিনি বলেন, কোন নেতা বা কর্মী নৌকার সাথে বেইমানী করলে তার তালিকা পাঠাবেন, জেলা আওয়ামীলীগের সিদ্ধান্তে সাথে সাথে বহিস্কার করা হবে। তিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতিকে এবিষয়ে দায়িত্ব দিয়ে যান। তিনি বলেন, চুনারুঘাট পৌরসভাটি দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে বিএনপির দখলে। পৌরসভা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সকল নেকাকর্মীকে প্রহরীর মতো মাঠে থেকে এবার আমাদের নৌকাকে বিজয়ী করে প্রমান করতে হবে আওয়ামীলীগ ঐক্যবদ্ধ থাকলে আওয়ামীলীগকে কেউ হারাতে পারেনা।

সভায় উপজেলা পারিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল কাদির লস্কর বলেন, আমি কখনো নৌকার বিপক্ষে নই, আমার নেত্রী সাইফুল আলম রুবেলকে নৌকা দিয়েছেন, নৌকার বিপক্ষে যাওয়ার কারো কোন সুযোগ নেই। নৌকা যেভাবে আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারী বিজয়ী হয় সেভাবেই আমার সকল নেতাকর্মীকে ভেদাভেদ ভুলে একযোগে কাজ করতে হবে। যে কোন মুল্যে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে।

পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু তাহের মহালদারের সভাপতিত্বে বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক নবীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী। আঃ সামাদ মাষ্টারের পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্ঠা আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্কর, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আকবর হোসেন জিতু, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেকত উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ আবু তাহের, মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা খাতুন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ- সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মাষ্টার, সৈয়দ মুদাব্বির আলী, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শামছুন নাহার চৌধুরী, আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক আনোয়ার আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রজব আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াহেদ আলী মাষ্টার, সজল দাশ, ইউপি চেয়ারম্যান হুমায়ূন কবির খান, আবেদ হাসনাত চৌধুরী সনজু, আলহাজ্ব ফজলুর রহমান তরফদার, নৌকার প্রত্যাশী ছিলেন তাদের মধ্যে সাথী মুক্তাদির কৃষাণ চৌধুরী, এডভোকেট সহিদুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুর রউফ, আব্দুল মালেক মাষ্টার, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক কে এম আনোয়ার হোসেন, সাবেক ছাত্রলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, উপজেলা স্বেছাসেবকলীগের সভাপতি মানিক সরকার, উপজেলা তাতীলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বাবুল, শ্রমিকলীগের সভাপতি খালেদ তরফদার, উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জামাল, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক সোহেল আরমান, যুগ্ন আহবায়ক সাইদুর আলমগীর। এতে বক্তব্য রাখেন , পৌর যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক আঃ রহমান, পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক, পৌর তাতীলীগের সভাপতি আব্দুল মালেক, পৌর কৃষকলীগের সভাপতি রমজানুরে রহমান শামীম, পৌর শ্রমিকলীগের সভাপতি মোহাম্মদ পারুল, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি, পৌর আওয়ামীলীগের ১নং ওয়ার্ডের সভাপতি আব্দুল সালাম, সাধারণ সম্পাদক খায়রুল হাসান, ২নং ওয়ার্ডের সভাপতি ফুল মিয়া, কৃষ্ণপদ ভটাটচার্য্য, ৩নং ওয়ার্ডের সভাপতি আঃ হানিফ, সাধারণ সম্পাদক ইদ্রিছ আলী, ৪নং ওয়ার্ডের সভাপতি নুহ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক শাহিন মিয়া, ৫নং ওয়ার্ডের সভাপতি প্রভাষক দুলাল আহমেদ. মলয় পাল চ্যেধুরী, ৬নং ওয়ার্ডের সভাপতি মিজান মিয়া, সাধারণ সম্পাদক হারুন মিয়া, ৭নং ওয়ার্ডের সভাপতি আকছির মিয়া ভান্ডারি, ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি হাবিজ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, ৯নং ওয়ার্ডের সভাপতি ফজলুল হক মিয়া, সাধারণ সমম্পাদক মোঃ তাহির মিয়াসহ পৌরসভার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

সভায় পৌর নির্বাচন পরিচালনা করার জন্য পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু তাহের মহালদারকে আহবায়ক, সহকারি অধ্যাপক আব্দুর রউফকে সদস্য সচিব করে একটি পরিচালনা কমিটি গঠন করা হয়। এবং উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা আলহাজ্ব আব্দুল কাদির লস্করকে প্রধান উপদেষ্টা করে নির্বাচনকালীন একটি উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়।

  •