লাল-হলুদে একাকার সিলেট নগরী

18

নিজাম উদ্দিন টিপু  ::: বসন্তের আগমনে মুখরিত হয়ে ওঠেছে সিলেট নগরীর বিভিন্ন এলাকা। চারিদিকে লাল-হলুদের ছড়াছড়ি। যেনো মেলা লেগেছে। শিশু, কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীদের দেখা যাচ্ছে হলুদ, কমলা ও বাসন্তী রঙের পোশাকে। ভালোবাসা দিবস ও বসন্তকে বরণের এই উৎসবে মেতেছে তারা সিলেটের তরুণ-তরুণীরা।

গতকাল ছিল পয়লা ফাল্গুন। ঋতুরাজ বসন্তকে বরণের দিন। নগরী টিলাগড়ে অবস্থিত এমসি কলেজ, জিন্দাবজার-চৌহাট্টা সড়ক, মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটি, লিডিং ইউনিভার্সিটি, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, কাজিরবাজার সেতুসহ বিভিন্ন জায়গায় বসন্ত বরণ উৎসবের রং লাগে।

নারীরা নিজেদের বসন্তের সাজে সাজাতে খোঁপায়-গলায়-মাথায় পরেছেন গাদা ফুলের মালা। হাতে রেশমি চুড়ি আর পরনে বাসন্তি রংয়ের শাড়ি।

শাহাজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরে দেখা যায় বসন্ত উপলক্ষ্যে পুরুষদের পরনেও শোভা পাচ্ছে রঙিন পাঞ্জাবি বা ফতুয়া। কেউ এসেছেন দলবেঁধে, কেউ জুটিবদ্ধ। সব মিলিয়ে প্রকৃতি আর মানুষ বসন্তের আমেজে মিলেমিশে একাকার।

করোনা পরিস্থিতিতে সীমিত পরিসরে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো নাচ-গান, আবৃত্তিসহ নানা আয়োজনে বসন্ত ও ভালোবাসা দিবস উদযাপিত হয়।

ঋতুরাজ বসন্তকে বরণ উপলক্ষ্যে গতকাল বিকাল ৪টায় নগরীর পূর্ব শাহী ঈদগাহস্থ শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় বসন্ত উৎসব অনুষ্ঠানের।

বাংলা বর্ষপঞ্জি সংশোধনের কারণে এবার বাংলা ফাল্গুন মাসের প্রথম দিন ও ভালোবাসা দিবস পড়েছে একই দিনে। ফেব্র“য়ারি মাসের ১৩ তারিখে ফাল্গুন মাসের প্রথম দিন উদযাপন হতো, আর ১৪ ফেব্র“য়ারি বিশ্ব জুড়ে পালন করা হয় ভালোবাসা দিবস। তবে এখন দুটি দিবসই বাংলাদেশে একই দিনে।

  •