হবিগঞ্জে বিধি-নিষেধ লঙ্ঘন : বিপুল জনসমাগমে হেলিকপ্টার হুজুর

38

নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি : বাহুবলে করোনার উর্ধ্বমুখী সংক্রমনরোধে জেলা প্রশাসন ঘোষিত গণবিজ্ঞপ্তিকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে বিপুল জনসমাগমে বক্তৃতা করলেন আলোচিত ইসলামী বক্তা এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী ওরপে হেলিকপ্টার হুজর। তিনি গতকাল শনিবার বিকালে হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলার চন্দ্রছড়ি শানেমোস্তফা হাফিজিয়া মাদরাসার বার্ষিক ইসলামী ছুন্নী মহা সম্মেলনের প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন। বিকাল ৩টা থেকে ৪টা ২০ মিনিট পর্যন্ত বক্তৃতা করেন। এরই আগে তিনি যথারীতি হেলিকপ্টারযোগে সভাস্থলে হাজির হন।

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান গত ১ এপ্রিল এক গণবিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে করোনার উর্ধ্বমুখী সংক্রমনরোধে সকল প্রকার সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধকরণসহ জীবন-যাত্রায় কিছু বিধি-নিষেধ আরোপ করেন। এসব বিধি-নিষেধ আরোপের পর থেকেই জেলার বাহুবল উপজেলার চন্দ্রছড়ি শানেমোস্তফা হাফিজিয়া মাদরাসার উক্ত বার্ষিক ইসলামী ছুন্নী মহা সম্মেলন অনুষ্ঠান ঝুঁকির মুখে পড়ে। ছুন্নী মহা সম্মেলনের প্রধান অতিথি এনায়েতুল্লাহ আব্বাসী আসবেন কী না- তা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়। তারপরও সম্মেলন স্থলে বিপুল জনসমাগম ঘটে। সমাবেশে উপস্থিত লোকজনের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি মানার কোন বালাই ছিল না। উপজেলার লামাতাশী পাঁচগ্রাম নেতা ফয়সল আহমেদ-এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন বাহুবল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান, জাগ্রত কবি মুহিব খান, আলোচিত ইসলামী সংগীত শিল্পী মুজাহিদুল ইসলাম বুলবুল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রমিজ আলী, মাওলানা আনোয়ার হোসেন সালেহী প্রমুখ।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহান-এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, হবিগঞ্জ জেলায় ১লা এপ্রিল গণবিজ্ঞপ্তিার মাধ্যমে সকল প্রকার সভা, সমাবেশ ও ওয়াজ মাহফিল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ নির্দেশ কেউ লঙ্ঘন করলে তার বিরুদ্ধে বিধি মোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্লাহ বলেন, আমরা উক্ত সমাবেশ না করার জন্য সংশ্লিষ্টদের জানিয়ে দিয়েছি। তারপরও নিদের্শনা লঙ্ঘিত হয়ে থাকলে তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাহুবল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ খলিলুর রহমান বলেন, কিছু সময় সম্মেলন চলার পর আমি নিজেই তা বন্ধ করে দিয়েছি।

বাহুবল উপজেলা নির্বাহী অফিসার স্নিগ্ধ তালুকদার বলেন, আমি ও ওসি বাহুবল উপস্থিত থেকে অতি সংক্ষিপ্ত সম্মেলন অনুষ্ঠানের পরপর তা বন্ধ করে দেই।

সমাবেশ চলাকালে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে বাহুবল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুজ্জামান বলেন, এ সমাবেশ সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। সম্মেলন শেষে তার সাথে পূনরায় যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

  •